না’গঞ্জে গুরু-শিষ্যের নেতৃত্বে জেলা ও মহানগর বিএনপির নতুন কমিটি

0

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে শুরু হতে যাচ্ছে নতুন মেরুকরণ।এবার গুরু-শিষ্যের হাতে আসছে জেলা ও মহানগর বিএনপির  নতুন কমিটি। দলের র্শীষ নেতাদের সম্বয়নের অভাব, দলীয় কর্মসূচিতে সভাপতির অনুপস্থিতি, পূনাঙ্গ কমিটি করতে ব্যার্থতা সব শেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হতাশাজনক পরাজয়ের পর জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন কমিটি করার দাবি উঠেছে তৃণমূল থেকে।

এ দিকে গুনঞ্জন চলছে বিএনপির নতুন কমিটিতে জেলা দায়িত্বে আসতে পারে তৈমূর আলম খন্দকার ও মহানগর বিএনপির দায়িত্ব পেতে পারেন তৈমূর আলম খন্দকারের শিষ্যে জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন খান।

গত ১৩ র্মাচ বিএনপির স্থায়ী কমিটির মিটিংয়ে সিধান্ত নেওয়া হয় দল গোছানোর। প্রতিটি জেলায় তৃনমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে আলাপ করে তরুন ও সক্রিয় নেতাদের হাতে দায়িত্ব দেওয়া হবে।যারা আগামী দিনের আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে থাকবে।

গত ৩০ ডিসেম্বর সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হলেও দলের মহাসচিব নারায়ণগঞ্জে সফরে এসে তৈমূর আলম খন্দকারের উপর দায়িত্ব দিয়ে যান ৫টি আসনের। তৈমূর আলম চেষ্টা করেন সবাইকে নিয়ে মাঠে নামতে।

এ দিকে নির্বাচনে ভরাডুরি পর অনেক নেতাই রাজণীতির মাঠ থেকে সরে দাড়িয়েছেন। দল থেকে সঠিক মূল্যায়ন না পেয়ে পদত্যাগ করেছেন ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি শাহ আলম। সব মিলিয়ে নারায়ণগঞ্জে বিএনপির এখন হযবরল অবস্থা। এ অবস্থা থেকে দলকে সুসংগঠিত করতে হাইকমান্ডের সিধান্তে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে সক্রিয় ভাবে মাঠে নেমেছেন জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বিএনপির চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট শাখাওয়াত হোসেন খান।এ দুই নেতার নেতৃত্বে আগামী দিনে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির কমিটি হতে পারে বলে মনে করেন তৃনমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারী নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটিতে বিগত কমিটির সেক্রেটারী কাজী মনিরুজ্জামানকে করা হয়েছে সভাপতি। আর অনেকটা চমক নিয়েই সেক্রেটারী হন জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক মামুন মাহমুদ। অপরদিকে সাবেক এমপি আবুল কালামকে সভাপতি ও এটিএম কামালকে সেক্রেটারী করে ২৩ সদস্যের মহানগর বিএনপির কমিটি গঠন করা হয়। পরদিন ১৪ ফেব্রুয়ারী আংশিকভাবে ২৬ সদস্যের জেলা কমিটি ও ২৩ সদস্যের মহানগর কমিটির অনুমোদন দেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দু’টি আংশিক কমিটিকে পরের ৩০ দিনের মধ্যে ১৫১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনেরও নির্দেশনা রয়েছে অনুমোদন পত্রে। এদিকে কমিটিতে নিস্ক্রিয় ও বিতর্কিত নেতাদের পদ দেয়ার প্রতিবাদে গত ২০ ফেব্রুয়ারী এক প্রতিবাদ সভায় ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারীতে মহানগর বিএনপির ২৩ জনের ঘোষিত কমিটিতে তৈমূরের ছোটভাই মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের যুগ্ম সম্পাদকের পদায়ন নিয়েও চলে নাটকীয়তা। সিটি করপোরেশনের একজন কর্মচারীরের পরে ছিল খোরশেদের নাম।

0