রেফারির সিদ্ধান্তে ক্ষোভ: নেইমারের বিরুদ্ধে তদন্তে উয়েফা

0

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম : চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের কাছে হেরে যাওয়ার দিনে ভিডিও অ্যানালিস্ট রেফারি (ভিএআর) সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন নেইমার। সেই ম্যাচে নেইমার খেলেননি চোটের কারণে। গ্যালারিতে বসে ম্যাচ দেখেছিলেন।

দল হেরে যাওয়ার পর তিনি ক্ষোভপ্রকাশ করে বলেছিলেন, ভিএআর সিস্টেমটা একবারে বিরক্তিকর।

প্যারিসে ওই ম্যাচে রেফারিকে হ্যান্ডবলের একটি সিদ্ধান্ত নিতে ভিএআরের সাহায্য নিতে হয়েছিল। ভিএআর দেখে রেফারি পেনাল্টি দিয়েছিলেন ম্যানইউকে। যার ফলে ৩-১ এগিয়ে গিয়েছিল রেড ডেভিলরা। অ্যাওয়ে গোল করার সুবাদে পরে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছে যায়।

আন্তর্জাতিক মিডিয়ার খবরে বলা হয়, ম্যাচ শেষ হতেই নেইমার চলে গিয়েছিলেন টানেলে, ম্যাচ অফিসিয়ালদের অফিসের দিকে। রেফারি দারিও স্কোমিনার উদ্দেশে চিৎকার করতে করতে যাওয়ার সময় পিএসজির কর্মকর্তারাই তাকে থামান।

সামনাসামনি রেফারিকে কিছু বলতে না পেরে ইনস্টাগ্রামে নেইমারের মন্তব্য, ‘এটা কলঙ্ক। চারজন ফুটবল না জানা লোককে ভিএআর-এর রিপ্লে দেখতে বসানো হয়েছে। এটা মোটেই পেনাল্টি নয়। এটা কীভাবে পেনাল্টি হয়! বল তো লেগেছে পিঠে।’

এরপর ঘটনার বেশ কয়েকটি ছবি দিয়ে রেফারির উদ্দেশে যা লেখেন, তা ছাপার অযোগ্য।

এমন মন্তব্যের জন্য নিষেধাজ্ঞায় কবলে পড়তে পারেন পিএসজি তারকা। উয়েফার এথিক্স এন্ড ডিসিপ্লিনারি কমিটি শাস্তি দিতে পারে নেইমারকে। যদিও সেটা কার্যকর হবে পরের মৌসুমে। কারণ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বাদ পড়ে গেছে তার দল।

ইউরোপিয়ান মিডিয়ার খবরে বলা হচ্ছে, ডিসিপ্লিন বিষয়ক কোডের ১১ ধারা লঙ্ঘন করেছেন নেইমার। যার জন্য এক থেকে তিন ম্যাচ নিষিদ্ধ হতে পারেন তিনি।

আগামী ২৮ মার্চ বসছে উয়েফার বৈঠক। সেখানে আলোচনার জন্য নেইমারের বিষয়টি আগেই নথিবদ্ধ করা হয়েছে। এবার শুরু হয়েছে তদন্তও।

আগে একইরকম মন্তব্য করে শাস্তি পেয়েছেন ক্রোয়েশিয়ার ডিফেন্ডার ডিজন লভরেন। উয়েফা নেশনস কাপে স্পেনের বিপক্ষে ম্যাচের পর রেফারিদের নিয়ে বাজে মন্তব্য করে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হন ক্রোয়েট তারকা।

0