প্যাপিলন নীট গার্মেন্টস শ্রমিকদের স্মারকলিপি প্রদান

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ সিদ্ধিরগঞ্জে অবস্থিত প্যাপিলন নীট এাপারেলস (প্রাঃ) লিঃ এর শ্রমিকেরা বন্ধ কারখানা খুলে দেওয়া, ২ মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধ ও ১১ দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য নারায়ণগঞ্জ শহরে মিছিল ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করে। সমাবেশে প্যাপিলন শ্রমিক মাজহারুলের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সহ-সভাপতি এম.এ. মিল্টন, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট গাবতলী পুলিশ লাইন আঞ্চলিক শাখার সাধারণ সম্পাদক হাসনাত কবীর, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সোহাগ, বিসিক শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ, কাঁচপুর শিল্পাঞ্চল শাখার সংগঠক সাইফুল ইসলাম, প্যাপিলন গার্মেন্টস এর শ্রমিক আনোয়ার, বেবী, রাজু, হোসেন প্রমুখ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, প্যাপিলন গার্মেন্টস গত ২৯ মার্চ ২০১৯ইং তারিখে নোটিশ দিয়ে ৩০-৩১ মার্চ ২দিন ছুটি ঘোষনা করে। শ্রমিকরা যথারীতি মেনে নেয়। পরবর্তীতে ০১লা এপ্রিল নিয়মতান্ত্রিকভাবে কাজে যোগদানের উদ্দেশ্যে কারখানায় যায়। কিন্তু মালিক কর্তৃপক্ষ একটি অবৈধ বে-আইনী নোটিশ বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ এর ১৩(১) ধারা অনুযায়ী কারখানা গেটে তালা দিয়ে বন্ধ ঘোষনা করেন। গত ১১ দিন যাবৎ শ্রমিকরা নিয়মতান্ত্রিকভাবে রাপজথে আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছে। কিন্তু মালিক কর্তৃপক্ষ ১১ দফা দাবি নিয়ে শ্রমিকদের সাথে না বসে সংকট সমাধান করার জন্য কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেননি। শ্রমিকরা তাদের সংকট সমাধানের জন্য ০১/০৪/২০১৯ইং তারিখ মালিক বরাবরে, ০২/০৪/২০১৯ইং তারিখে শ্রম অধিদপ্তর, ০৩/০৪/২০১৯ইং বিকেএমইএ বরাবর এবং ১০/০৪/২০১৯ইং তারিখে ইন্ড্রাষ্ট্রিয়াল পুলিশে-০৪ বরাবর অভিযোগপত্র দিয়েছে। এই সংকট সমাধানে কেউ এগিয়ে এসেছে বলে পরিলক্ষিত হয়নি। শ্রমিকেরা টাকা পয়সা না পাওয়ায় খুবই মানবেতর জীবন যাপন করছে। বর্তমানে শ্রমিকরা ঘর ভাড়া দিতে না পারায় বাড়ীওয়ালা তাদেরকে ঘর থেকে বের করে দিচ্ছেন, ঘর তালাবদ্ধ করে রাখছেন। এমবস্থায় শ্রমিকেরা রাস্তায় এসে দাঁড়িয়েছে। বেতন না পাওয়ায় ঘর ভাড়া, দোকানের পাওনা টাকা পরিশোধ ও দৈনন্দিন স্বাভাবিক জীবন যাপনের করতে পারছে না। কারখানার ৬ শতাধিক শ্রমিক রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে এক অমানবিক মানবেতর জীবন যাপন করছে।

নেতৃবৃন্দ আরও বলেন, এই সংকট সমাধান করতে সকল প্রশাসনিক দপ্তর, মালিক ও মালিক প্রতিনিধির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, অন্যথায় এই আন্দোলন আরও বৃহত্তর পরিসরে ছড়িয়ে পড়বে। কোন অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে শ্রমিকরা এর দায়ভার নেবে না।প্রেস বিজ্ঞপ্তি

1