সাইফকে হারিয়ে শীর্ষেই রইল কিংস

0

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: শুরুতে সাইফ স্পোর্টিং গোল করে চমকে দিয়েছিল। এরপর বসুন্ধরা কিংসের আধিপত্য এবং গোলের জোয়ারে সেটা শেষ পর্যন্ত চমক হয়েই থাকে। তিন বিদেশির গোলে স্বাধীনতা কাপজয়ীরা ৩-২ গোলে সাইফকে হারিয়ে ধরে রাখে শীর্ষস্থান। অপরাজিত কিংসের ১১ খেলায় ১০ জয় ও এক ড্রয়ের সুবাদে ৩১ পয়েন্ট। তাদের ঠিক পেছনে ১১ খেলায় ২৭ পয়েন্ট গতবারের চ্যাম্পিয়ন আবাহনীর। প্রথম লেগে দুই দলেরই বাকি আছে একটি করে ম্যাচ। সেটি হারলেও কিংস শীর্ষস্থানে থেকে শেষ করবে প্রিমিয়ার লিগের প্রথম লেগ।

নীলফামারীতে সাইফের গোলটি ছিল মৌচাকে ঢিলের মতো। সেটি খেয়েই তেড়েফুঁড়ে উঠে বসুন্ধরা কিংস প্রথমার্ধেই ৩-১ গোলের লিড নেয়। ম্যাচও যেন শেষ হয়ে যায় ওখানে। কিংসের টেকনিক্যাল ম্যানেজার যোবায়ের নিপুও মনে করেন প্রথমার্ধেই তাদের ম্যাচ জেতা হয়ে যায়, ‘গোল খেতেই পারে। খাওয়ার পর কোনো চাপ নেয়নি আমাদের ছেলেরা। কারণ তারা জানে, পিছিয়ে থেকেও ম্যাচ জেতার ক্ষমতা আছে এই দলের। সেটাও তারা করে দেখিয়েছে প্রথমার্ধে। সেই ধারা বজায় থাকলে দ্বিতীয়ার্ধে আরো গোল হতো। কিন্তু বিরতির পর তারা হালকা মেজাজে খেলেছে, তাই শেষে একটি গোল খেয়ে বসে।’ আসলে ৩-১ গোলে লিড নেওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে তাদের গোলের তাড়নাও ছিল না ওরকম।

তবে দলটির পরিণতি বোধ এখন অনেক। মৌসুমের প্রথম টুর্নামেন্ট ফেডারেশন কাপের ফাইনালে যেমন গোল খেয়ে পুরো এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল, সেটা এখন আর নেই। গতকাল শুরুতে সাইফের গোলের পরও তারা খেলেছে স্বাভাবিক ফুটবল। ৩ মিনিটে সাজ্জাদ হোসেনের কর্নার কিকে কলম্বিয়ান ডিফেন্ডার আন্দ্রেসের সাইডভলিতে পিছিয়ে পড়ে স্বাগতিকরা। এরপর শুরু হয় তাদের ম্যাচে ফেরার লড়াই। খেলে আধিপত্য বজায় রেখে। ২৬ মিনিটে মার্কোস ভিনিসিয়াসের দুর্দান্ত শট একবার ফিরিয়ে দেন সাইফের গোলরক্ষক জিয়াউর রহমান। এর মিনিট ছয়েক বাদেই এ ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড করেন চমৎকার এক গোল। ইমন বাবুর লং বলটি ভিনিসিয়াস বুকে নামিয়ে এক ডিফেন্ডারকে বডি ডজে ছিটকে ফেলে বাঁ পায়ে দারুণ ফিনিশ করেন। ম্যাচ ফেরে সমতায়। ৪২ মিনিটে লিড নেওয়ার গোলের উৎসও ইমন মাহমুদ। ডান দিক থেকে এই মিডফিল্ডারের এক ডেলিভারিতে গোলরক্ষক পরাস্ত, এক ডিফেন্ডার ক্লিয়ার করতে গিয়ে হেড করেন। পোস্টের সামনে দাঁড়ানো পাল্টা হেডে কোস্টারিকান বিশ্বকাপার ড্যানিয়েল কলিনড্রেস বল জালে পৌঁছে দেন। বিরতিতে যাওয়ার আগে ইনজুরি টাইমে আরেক বিদেশি বখতিয়ার দুশবেকভের গোলে ৩-১ গোলে লিড নেয় কিংস। মতিন মিয়া ডান দিক ধরে ঢুকে পোস্টের সামনে ঠেললেও প্রথমে ভিনিসিয়াস পড়ে ডিফেন্ডারের চ্যালেঞ্জের মুখে। পরে সেই বল পোস্টে ঠেলেন কিরগিজস্তানের এই মিডফিল্ডার।

৩-১ গোলে লিডের পর কিংসের খেলায় তাল কেটে যায়। আক্রমণেও খানিক ভাটা পড়ে। এই সুযোগে সাইফের রাফির লক্ষ্যভেদী হেডে ম্যাচে আবার উত্তেজনা ছড়ায়। তাতে তেমন কিছু হয়নি, ৩-২ গোলের লিড ধরে রাখার তৎপরতা বেড়ে যায় কিংসের। শেষ পর্যন্ত তা ধরে রেখেই ম্যাচ জিতে শীর্ষস্থান অক্ষুণ্ন রাখে তারা। একই সঙ্গে তাদের প্রথম লেগে শীর্ষে থাকাটাও নিশ্চিত করেছে কিংস। চট্টগ্রাম আবাহনীর বিপক্ষে বাকি ম্যাচটি হারলেও তাদের টপকাতে পারবে না চ্যাম্পিয়ন আবাহনী। এতে বেশ ফুরফুরে কিংসের স্প্যানিশ কোচ অস্কার ব্রুজোন, ‘চট্টগ্রাম আবাহনীকে হারিয়েই আমরা ৪ পয়েন্টের লিডে থাকতে চাই। প্রথম লেগের এই লিড সব সময় দলকে অনুপ্রাণিত করবে। খেলোয়াড়দের আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে ফিরতি লেগেও। এটা দারুণ ব্যাপার।’

দিনের অন্য ম্যাচে শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র ২-০ গোলে রহমতগঞ্জকে হারিয়েছে। ৪ মিনিটে সোহেল রানার গোলের পর ১৭ মিনিটে রাফায়েল ওডোইনের গোলে ৩ পয়েন্ট নিশ্চিত করে। মুক্তিযোদ্ধার বিপক্ষে আগের ম্যাচ ড্রর পর জয়ে ফেরা রাসেল ১১ ম্যাচে ২৪ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে।

0