আই এম রেডি টু ডাই- শামীম ওসমান

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, এই এলাকায় কোন বেয়াদব থাকবে না।‘এখানে আমার মুরুব্বিরা থাকবে, মেয়েরা শান্তিতে হাটবে। এখানে বাসিন্দাদের মধ্যে কেউ যদি খারাপ থাকে তাহলে তার নামশেষ করে দিব। যদি আপনারা চান, না চান কিছু করার নাই।’ তাকে বের করে দিব। আপনাদের প্রতি আমার কষ্ট এটাই আপনারা আমাকে জানানোর প্রয়োজন মনে করেননি। আপনারা কিন্তু বস্তিতে থাকেন না, এখানে সবাই মধ্যবিত্ত, উচ্চবিত্তরা থাকেন।
শনিবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার ভূইগড়ে রূপায়ন টাউনে ফ্ল্যাট মালিকদের সঙ্গে মতবিনিময় কালে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, ‘আপনারা কিন্তু আপনাদের ডিউটি পালন করে নাই। একবার বলে দেখতেন আমাকে। টেস্ট করে দেখতেন। আশেপাশের কোন এলাকাতে ঝামেলা দেখলেও জানাবেন। কাজ না করলে তখন বলবেন। আজকের পর থেকে রূপায়নে যারা আছেন আমার মা বোনও আছেন।
তিনি আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জে অনেক খেলা হচ্ছে। এর প্রত্যেকটি জবাবও আমার কাছে আছে। ডকুমেন্টও আছে অনেক কিছুর। কিন্তু প্রকাশ করছি না। ধৈর্য ধরছি। আমি আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করি না। ধীরে ধীরে আজকাল আমি মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত হচ্ছি। আই এম রেডি টু ডাই।
এর আগে রূপায়ন গ্রুপের মালিকানাধীন রূপায়ন আবাসিক এলাকার ফ্ল্যাট বাসায় হামলার অভিযোগে সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতি নাজিমউদ্দিন সহ তার অনুগামীদের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে দুটি মামলা হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে হামলায় আহত একজন ও অপর একজন আহতের পক্ষে তার ভাই মামলা দুটি দায়ের করেন।
পৃথক দুটি মামলায় অভিন্নভাবে নাজিমউদ্দিনকে প্রধান বিবাদী করা হয়েছে। এছাড়া অন্যরা হলেন সোহেল ভান্ডারী, সুমন, আকাশ, কাজল, শিপু, মনির, কায়েস, কাজল, শাওন, মুগ্ধ, পুলক, বাবুল।
দুটি মামলার একটি বাদী আবু সাঈদ পাটোয়ারী। অপরটির বাদী আশরাফ সিদ্দিকী। তারা দুইজনই রূপায়নের ফ্ল্যাট মালিক।
মামলা দুটিতে অভিযোগে করা হয়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় নাজিমউদ্দিনের নেতৃত্বে উল্লেখিত ১৩ জন সহ আরো ৫০ থেকে ৬০ জন সন্ত্রাসী দফায় রূপায়ন টাউনে ঢুকে প্রথমে আবু সাঈদ পাটোয়ারীকে মারধর করে। ওই সময়ে ক্যামেরা, মোবাইল, নগদ ৫০ হাজার টাকা লুটে নেয়। পরবর্তীতে আশরাফ সিদ্দিকীর ভাই আবুল কালাম আজাদকেও মারধর করা হয়।

1