অমানুষিক নির্যাতনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গৃহবধূর মৃত্যু

0

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ বন্দরে যৌতুকের টাকা না দেয়ায় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের অমানুষিক নির্যাতনে মুমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতুবরণ করেছেন গৃহবধূ মুক্তা (২৪)।
শুক্রবার (২০ এপ্রিল) রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২ দিন নিবিড় পর্যবেক্ষণে থেকে মারা যান মুক্তা। শনিবার বিকেলে ময়না তদন্ত শেষে লাশ বন্দরের মাঠপাড়া এলাকায় নিহতের পিতার বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।
মুক্তার পেটের বিভিন্ন স্থানে কাঁচি দিয়ে আঘাত, সুপার গ্লু ও পেরেক দিয়ে মুখ সেলাই করে অমানুষিক নির্যাতন করেছে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন এমন অভিযোগে বন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন নিহতের পরিবার। অভিযুক্ত নিহতের স্বামী দেলোয়ার পেশায় একজন ইলেকট্রনিক্স মিস্ত্রী।
নিহতের মা শিল্পি বেগম জানান, তার মেয়েকে নবীগঞ্জ কবরস্থান সংলগ্ন সিদ্দিক মিয়ার ছেলে দেলোয়ার প্রায় ৫ বছর পূর্বে প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকে দেলোয়ার, তার মা চানবানু ও বাবা সিদ্দিক মিয়া যৌতুকের নানাভাবে নির্যাতন করতো। গত শুক্রবার রাতে তার মেয়েকে হত্যার জন্য অমানুষিক নির্যাতন চালায় দেলোয়ার। বাড়ির ভাড়াটিয়ারা খবর দিলে তারা হাসপাতালে গিয়ে মেয়ের অবস্থার বেগতিক দেখে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে যান। কিন্তু মেয়েটিকে বাঁচানো গেলো না। মেয়ের হত্যার বিচার দাবি করেন তিনি।
বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘দুইদিন আগে নারী নির্যাতন মামলা হয়েছে। নিহতের পিতা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন। এখন এ মামলায় হত্যার বিষয়টি যোগ হবে। আসামিদের দ্রুত গ্রেফতার করা হবে।’

0