না’গঞ্জকে অবশ্যই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে: হারুন-অর রশিদ

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ বলেছেন, বাংলাদেশে জামাত, শিবির ও মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তির কোন স্থান নেই। যারা বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন মেনে নিতে পারছেনা, ওইসব স্বৈরাচারী চক্রান্তকারীদের চিহ্নিত করতে হবে। পুলিশ বাহিনী আজ প্রতিটি পাড়ায় পাড়ায় একত্রিত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের সকল স্বপক্ষের শক্তি আসুন আমরা একত্রিত হই। সকল অপশক্তিতে প্রতিহত করি।
শনিবার (২৭ এপ্রিল) বিকেলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিবস ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে সংগীত,আবৃত্তি ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বঙ্গবন্ধু স্বর্ণপদক’ বিতরণ অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক ও নারায়ণগঞ্জ রাইফেলস ক্লাবের সভাপতি রাব্বী মিয়ার সভাপত্বিতে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা একত্রিত হবেন। বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় খোঁজ নিতে হবে, মজজিদগুলোতে খবর নিতে হবে। কারা সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প তুলে আমাদের দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে চায়, কারা বিদেশীদের বিনিয়োগ বন্ধ করতে চায় সেগুলো খেয়াল রাখতে হবে।
এসপি হারুন বলেন, মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে আমরা সবসময়ই আছি। মাদক, সস্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আমাদের সবসময় আহবান করবেন।
এসপি হারুন আরো বলেন, মাদক ব্যবসায়ী, মাদকাসক্তদের আপনাদের চিহ্নিত করতে হবে। কোন চাঁদাবাজির কারণে, সন্ত্রাসীর কারণে কোন গার্মেন্টস শিল্পকে যাতে বন্ধ করতে না পারে সেদিকে আমাদের খেয়াল রাখতে হবে। একজন পুলিশ হিসেবে আমি আপনাদের সকল ভালোকাজের সাথে আছি। আপনারা যখন আমাকে ডাকবেন আমি সেখানেই যাবো। নারায়ণগঞ্জের সকল নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে একটি সুন্দর নারায়ণগঞ্জ উপহার দিবো। নারায়ণগঞ্জকে অবশ্যই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে।
তিনি আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান এই এলাকার সম্মানীত সংসদ সদস্য এই এলাকার কৃতি সন্তান। আমার অত্যন্ত প্রিয় নেতা। আমরা যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তাম তখন যাকে আমরা খুব হিরো হিসেবে জানতাম সে আজকের প্রধান অতিথি জনাব শামীম ওসমান। যে কথাটি আপনাদের এমপি মহোদয় একটু পরে বলবেন। উনি আমাকে মাঝে মাঝে ম্যাসেজ করে পাঠান, সেই কথাটি বলবেন। সেটি হচ্ছে একাত্তরের পরাজিত শক্তিরা একাত্তরকে ভুলে যেতে পারেনাই।
তিনি বলেন, একাত্তরের পরাজিত শক্তিরা একাত্তরকে ভুলে যেতে পারেনাই বলেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে শাহ আজিজকে প্রধানমন্ত্রী, গোলাম আজমকে নাগরিকত্ব দিয়ে তারা আবার স্বাধীনতা বিরোধী চক্রান্তকারীদের গাড়িতে পতাকা দিয়ে এদেশের স্বাধীনতাকে ভুলন্ঠিত করতে চেয়েছিলো। তারা ভেবেছিলো স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আর কথা বলার সুযোগ পাবেনা। আজকে জাতির জনকের কন্যার নেতৃত্বে স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার শেষ হয়েছে, ওই গোলাম আজমদের বিচার হয়েছে, জামাত শিবিরের বিচার শুরু হয়েছে আবার নতুন কায়দায় চক্রান্ত শুরু হয়েছে।
এসপি হারুন আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ায় বোমা হামলা, যশোরে বোমা হামলা, রমনায় বোমা হামলা, ময়মনসিংহে সিনামাহলে বোমা হামলা করে শত শত লোককে হত্যা করেছে, অনেককে পঙ্গুত্ব বরণ করতে হয়েছে। কারণ যখনই দেখেছে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি দ্বারা বিজয় রচিত হয়েছে, দেশ যখন উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে যাচ্ছে তখনই ওই জামাত-শিবির চক্র বিভিন্ন কায়দায় জঙ্গিবাদ করে বোমা হামলা করে মানুষকে হত্যা করে। তারা আসলে ইসলাম নয় তারা ইসলামের শত্রু। আবার তারা বিভিন্ন জায়গায় সারা বাংলাদেশে একত্রিত হওয়ার চেষ্টা করছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা। এছাড়া অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ রাইফেলস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খালেদ হায়দার খান কাজল, মহানগর আওয়ামী লীগের য্গ্মু সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজাম, ছাত্রলীগ নেতা এহসানুল হক নিপু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

1