“জামায়াত আমীরের নাতনী শ্রমিক লীগ নেত্রী”

1

শীর্ষক সংবাদ সম্পর্কে আমার বক্তব্য- হাসিনা রহমান সিমু

সম্প্রতি নারায়নগঞ্জের কয়েকটি অন লাইন নিউজ পোর্টাল ও নারায়নগঞ্জ থেকে প্রকাশিত কয়েকটি সংবাদ পত্রে আমি হাসিনা রহমান সিমু কে উদ্দেশ্য করে “জামায়াত আমীরের নাতনী শ্রমিক লীগ নেত্রী” – শীর্ষক এক সংবাদ আমার ছবি সহ প্রকাশিত হওয়ায় আমার দৃষ্টি ঘোচর হয়েছে।

প্রতিবেদনটি পাঠের পর আমার কাছে এটাই প্রতিয়মান হয়েছে যে স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে বংগবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের প্রতি আমার অগাধ ভালবাসা ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার নেতৃত্বদান কারী আওয়ামী লীগের প্রতি আমার অনুগত্য এবং এর একজন কর্মী হিসেবে কাজ করার যে প্রচেষ্টা আমি চালিয়ে যাচ্ছি তা অব্যাহত রাখতে আমার অবস্থান ব্যাখ্যা করা জরুরী।

প্রতিবেদনে আমার নানা জাফর সাদেক ভূইয়া যিনি বন্দর থানা জামায়াতের আমির ছিলেন বলে উল্লেখ্য করা হয়েছে তিনি আজ থেকে ১৪ বসর আগে মারা গেছেন। আমার প্রশ্ন হলো আমার নানা যদি জামাতে ইসলাম করে থাকেন সেটা কি আমার অপরাধ। নাকি আমি আমার জীবনে তার কোন রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে জরিত ছিলাম। নানার রাজনৈতিক কর্মকান্ডের কারনে যদি তার মৃত্যুর ১৪ বসর পরে শুধু মাত্র তার নাতনী হওয়ার কারনে স্বাধীন দেশের স্থপতি জাতির পিতা বংগবন্ধুকে ভালবাসার অধিকার হারাই ও বংগকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে সোনার বাংলা গড়ার ক্ষেত্রে নিজের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা নিয়োজিত করার অধিকার হারাই তা হবে আমার জন্য হৃদয় ভাংগা কস্টের।

আর আমার দাদা আমার জন্ম দাতা পিতার নাম স্বাধীনতার আগেই বংবন্ধুকে ভালবেসে রেখেছিলেন মজিবুর রাহমান। আমার পিতা শেখ হাসিনাকে ভালোবেসে আমার নাম রেখেছিলেন হাসিনা। আর এটা জানতে পেরে দু বসর আগে গন ভবনে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী আমাকে জরিয়ে ধরে কপালে চুমু দিয়ে আদর করে দোয়া করে দিয়েছিলেন। প্রধান মন্ত্রীর এই ভালবাসাই আমার আগামী দিনের পথ চলার পাথেও।

শুধু তাই না বংগবন্ধুর নাতনী সায়মা ওয়াজেদ পুতুলের কার্মকান্ডের অনুপ্রেরণায় আমি একটি প্রতিবন্ধী স্কুল গড়ে তুলেছি গত ২০১৬ সালে যা নানা প্রতিবন্ধকতা সহ আমি এখনো চালিয়ে যাচ্ছি।

প্রকাশিত প্রতিবেদনটিতে আমি ও আমার পরিবার কস্ট পেয়েছি, তাই শুধু আমি এতটুকুই
দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিতে চাই আমার নানার রাজনৈতিক পরিচয়ের কারনে যদি আমার আওয়ামী লীগ করার অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয় তবুও বংগবন্ধুর প্রতি আমার ভালবাসা ও শেখ হাসিনার প্রতি আনুগত্য এবং তার স্নেহের প্রত্যাশা থেকে আমাকে আমার মৃত্যুব্যতীত কেহ রুখতে পারবেনা।

পরিশষে আমি সংশ্লিষ্ট সবাই কে অনুরোধ করবো প্রকাশিত প্রতিবেদন সম্পর্কে আমি আমার বক্তব্য দিলাম, কোন কিছু ভুল হয়ে থাকলে ক্ষমা সুন্দর দৃস্টিতে দেখবেন।

ধন্যবাদান্তে

হাসিনা রহমান সিমু
মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা
নারায়ণগঞ্জ জেলা শ্রমিক লীগ

1