ধর্ষণ মামলায় ৩দিন পর ঊর্ধ্বতনদের নির্দেশে মামলা গ্রহণ ওসির

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ  আড়াইহাজারে একটি ধর্ষণের অভিযোগ দেওয়ার তিন দিন পরও মামলা না নেওয়ার খবর প্রকাশের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সিদ্ধান্ত বদলিয়ে পরে ঊর্ধ্বতনদের নির্দেশে দ্রুত মামলাটি গ্রহণ করেন ওসি। অভিযোগকারীকে বাড়ি থেকে ডেকে এনে মামলা রুজু করিয়েছেন তিনি।

২৫ আগস্ট রোববার দুপুরে অনলাইন নিউজ পোর্টালে এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশের পরেই জেলা পুলিশের দৃষ্টিগোচর হয় বিষয়টি। পরে ঊর্ধ্বতনদের নির্দেশে দ্রুত মামলাটি গ্রহণ করেন ওসি।

ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ের মা জানান. জানান, গত ৪ মাস যাবৎ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার ১৬ বছরে মেয়েকে ধর্ষণ করে আসছে উপজেলার বিশনন্দী ইউনিয়নের চৈতনকান্দা গ্রামের রুপ মিয়ার ছেলে।

ধর্ষিতা জানান, গত ৪ মাস যাবত ধর্ষক আরিফ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরার কথা বলে তার ইচ্ছার বিরুদ্বে বহুবার শারীরিক এবং দৈহিক সর্ম্পক গড়ে তোলে। এখন তাকে রেখে অন্য মেয়ের সাথে সর্ম্পক গড়ে তুলে লম্পট আরিফ। এ সময় তাকে বিয়ের করার কথা বলেলে সে তাকে বিষ খেয়ে মরে যাওয়ার কথা বলে। তার কথা অনুযায়ী গত মঙ্গলবার বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে।

এ অবস্থায় ধর্ষিতা কোন উপায় খুঁজে না পেয়ে তার মার কাছে সমস্ত ঘটনা খুলে বলার পর তার মা ধর্ষক আরিফের বাবামাকে এ ঘটনা জানালে তারা ধর্ষিতার সাথে আরিফের বিয়ের আশ্বাস দেন।

কিন্তু বিয়ের আশ্বাস দেওয়ার অনেক দিন অতিবাহিত হলেও এখন তারা নানান তালবাহানা করছে। গত ২৩ আগষ্ট ধর্ষিতার মা ধর্ষকের পরিবারকে আবারো বিয়ে করার কথা জানালে তারা ধর্ষিতার মা ও ধর্ষিতাকে মেরে ফলার হুমকি দেন। পরে ও দিন আড়াইহাজার থানায় এসে ধর্ষিতার মা ছেতারা বেগম একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ দায়েরের তিনদিন গত হলে রহস্যজনক ভাবে মামলা নেয়নি পুলিশ। ধর্ষিতার মা আরো অভিযোগ করেন, স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল পুলিশের সাথে আতাত করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে এবং আপোষ মিমাংসার জন্য খালি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার জন্য চাপ দেয় আসামী পক্ষ।

আড়াইহাজার থানার ওসি মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন, মামলা গ্রহণ করা হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

1