অধিনায়কত্ব বাড়তি চাপ নয় মুমিনুলের কাছে

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম: বাংলাদেশের টেস্ট অধিনায়ক হওয়া মুমিনুল হকের কাছে ভীষণ অপ্রত্যাশিত। তবে নেতৃত্বভার পাওয়ার আলাদা কোনো চাপ নিচ্ছেন না টপ অর্ডার এ ব্যাটসম্যান। জেতার জন্যই ভারতে যাবেন বলে জানিয়ে দিলেন তিনি।

ফর্মে থাকা মুমিনুল হকের ব্যাটিং দেখে মনে হয় বাইশ গজের ধ্যানমগ্ন ঋষি! মাইক্রোফোনের সামনে মুমিনুলের রসবোধ বেশ ভালো। সাকিব আল হাসান নিষিদ্ধ হওয়ায় ঘটনাক্রমে টেস্ট দলের নেতৃত্ব পেয়েছেন মুমিনুল। অথচ দলে আছেন মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহর মতো সিনিয়র ক্রিকেটার। তারপরও কেন মুমিনুল অধিনায়ক—প্রশ্নটি করা হয়েছিল স্বয়ং মুমিনুলকেই। জবাবে মুমিনুল বল ঠেলে দিলেন নিরাপদ কোর্টে, ‘এটা তো ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। সত্যি কথা বলতে এ প্রশ্নের উত্তর দেওয়া আমার পক্ষে সম্ভব না।’

সত্যি কথাই। মুমিনুলকে টেস্ট দলের অধিনায়ক বানানো টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। এমনিতে তিনি টেস্ট দলে নিয়মিতই। কিন্তু জাতীয় দলের অধিনায়ক হবেন তা ঘুণাক্ষরেও ভাবেননি। অনাকাঙ্ক্ষিত এক ঘটনায় অপ্রত্যাশিতভাবেই নেতৃত্বভার পেয়েছেন মুমিনুল। জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করে সাকিব নিষিদ্ধ হওয়ায় নেতৃত্ব তাঁর বিকল্প হিসেবে মুমিনুলকে বেছে নিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। ঘরোয়া ক্রিকেটে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতা থাকলেও জাতীয় দলের নেতৃত্বভার পাওয়া মুমিনুলের কাছে তাই ভীষণ অপ্রত্যাশিত।

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আজ সংবাদমাধ্যমকে এ কথাই জানালেন মুমিনুল, ‘কোনোভাবেই প্রস্তুত ছিলাম না। পুরোপুরি অপ্রত্যাশিত এটা। কোনো সময়ই চিন্তা করিনি বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক হব। কিংবা টেস্ট দলের অধিনায়ক হব এমন কিছু স্বপ্নেও ছিল না। যাই হোক পেয়েছি, আলহামদুলিল্লাহ।’ তবে নেতৃত্বভার এই বাঁ হাতি টপ অর্ডারের কাছে আলাদা কোনো চাপ না। আলাদা চাপ ভাবলেই কাজটি কঠিন হয়ে যায় বলে মনে করেন মুমিনুল, ‘কখনোই চিন্তা করিনি অধিনায়কত্ব বাড়তি চাপ কিংবা দায়িত্ব। এভাবে চিন্তা করলে বাড়তি চাপ হয়ে যায়। আগে যেভাবে খেলেছি রান করার জন্য, দলের জন্য, সেভাবেই খেলব।’

টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে মুমিনুলের অভিষেক ঘটবে ভারতের মাটিতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে। দলে সাকিব-তামিমের মতো দুই সিনিয়র নেই। সঙ্গে ভারতের মতো প্রতিপক্ষের মাটিতে টেস্ট সিরিজ হওয়ায় বাংলাদেশের জন্য এ সিরিজটা অনেক কঠিন। কিন্তু মুমিনুল এ নিয়ে ভেবে ভেবে অতিরিক্ত কোনো চাপ নিচ্ছেন না। ব্যাখ্যা দিলেন নিজেই, ‘আমার কাছে মনে হয় আপনি যেভাবে চিন্তা করবেন জিনিসটা সেভাবেই হবে। আপনি যদি মনে করেন কঠিন হবে তাহলে এখন থেকেই কঠিন হবে। কিন্তু আপনি যদি চিন্তা করেন ভালো চ্যালেঞ্জ আছে সেটা আমি নেব। আমার কাছে মনে হয় সেভাবে চিন্তা করাই ভালো। আমি মনে করি এটা পুরোটাই মানসিক ব্যাপার। স্বাভাবিক খেলাটা খেললে ওরকম প্রভাব পড়বে না।’

সাকিব-তামিম না থাকায় একটি ইতিবাচক দিকও দেখছেন মুমিনুল, ‘তাদের মতো সিনিয়র দুজন ক্রিকেটারের না থাকা দলকে প্রভাবিত করবে। কিন্তু দলে নতুন যারা এসেছে তাদের জন্য এটি অনেক বড় সুযোগ।’ দুই সিনিয়র খেলোয়াড়ের অনুপস্থিতিতে দলের লক্ষ পাল্টাচ্ছে না বলেও জানিয়ে দিলেন মুমিনুল, ‘প্রত্যাশা একটাই আমরা যেখানেই যাই জেতার জন্যই যাই। জেতার জন্যই ভারত যাব।’

বিরাট কোহলি টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে বিশ্রাম নিলেও আছেন টেস্ট সিরিজে। ১৪ নভেম্বর ইন্দোরে সিরিজের প্রথম টেস্টে কোহলির সঙ্গে টস করতে নামবেন মুমিনুল। তাঁর কাছে এটি বেশ রোমাঞ্চকর বিষয়, ‘অনেক বেশি রোমাঞ্চ আছে কারণ আমার কাছে মনে হয় সে (কোহলি) বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়, সব সংস্করণ বিবেচনায় এক নম্বর ব্যাটসম্যান। আমার কাছে বেশ ভালো লাগবে।’

১৪ নভেম্বর ইন্দোরে শুরু হচ্ছে সিরিজের প্রথম টেস্ট। ২২ নভেম্বর কলকাতায় শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট। এ ম্যাচটি হবে দিবা-রাত্রির ।

1