আপিল বিভাগে নজিরবিহীন বিক্ষোভ

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে নজিরবিহীন বিক্ষোভ করছেন আইনজীবীরা। খালেদা জিয়ার জামিন শুনানিকে কেন্দ্র করে এই বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা। পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী আজ জামিন শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট না আসায় রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের প্রেক্ষিতে আগামী ১২ই ডিসেম্বর শুনানির পরবর্তী দিন ধার্য করেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৬ সদস্যের আপিল বেঞ্চ।

এ সময় আদালতে উভয়পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে বাকবিতন্ডা ও হট্টগোল বেধে যায়। পরে এজলাস কক্ষ ত্যাগ করে আপিল বেঞ্চ। এরপর থেকে ওই কক্ষেই অবস্থান করেন খালেদার পক্ষের আইনজীবীরা। আপিল বেঞ্চ দ্বিতীয় দফা এজলাসে প্রবেশ করলেও জামিন শুনানি না নেয়ায় নানা স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ করেন আইনজীবীরা।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ড তার সর্বশেষ স্বাস্থ্যগত অবস্থা জানাতে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী আজ রিপোর্ট (প্রতিবেদন) জমা দিতে পারেনি। ফলে রাষ্ট্রপক্ষের সময়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে আগামী ১১ই ডিসেম্বর পর্যন্ত রিপোর্ট জমা দিতে নতুন সময়সীমা নির্ধারন করেন আদালত।
এর পরদিন ১২ই ডিসেম্বর জামিন শুনানি হবে বলেও জানান আদালত। এদিকে খালেদা জিয়ার জামিন না হওয়ায় বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা এজলাসেই অবস্থান করেন।

আজ সকাল ৯টা ৪০ মিনিটে শুনানি শুরু হয়। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ মেডিকেল রিপোর্ট প্রস্তুত না হওয়ায় সময় আবেদন করেন। আদালত আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ১২ই ডিসেম্বরের মধ্যে খালেদা জিয়ার সর্বশেষ স্বাস্থ্যগত অবস্থা জানাতে নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে ওইদিন পরবর্তী শুনানীর দিন নির্ধারণ করেন।

এ সময় বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা বারবার জামিনের কথা বলতে থাকেন। কিন্তু প্রধান বিচারপতি তাদের কথায় কান দেননি। দু’পক্ষের আইনজীবিদের মধ্যে হট্টগোল শুরু হয়। এরই একপর্যায়ে সকাল ১০টার দিকে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে অন্যান্য বিচারপতিরা এজলাস থেকে বের হয়ে যান। তবে খালেদার জামিন না হওয়ায় বিএনপিপন্থি বিচারপতিরা এখনো এজলাসে অবস্থান করছেন।

দ্বিতীয়বারের মতো প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ছয় বিচারপতির আপেল বেঞ্চে ১১ টা ৪৫ মিনিটে এজলাসে প্রবেশ করেন। পরে আওয়ামীপন্থি আইনজীবীরাও এজলাসে প্রবেশ করলে আবারও তুমুল হট্টগোল শুরু হয়।

প্রধান বিচারপতির এজলাসে থাকা অবস্থাতেই বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। স্লোগানে তারা বলেন, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, শেম শেম বলে, খালেদা জিয়া, খালেদা জিয়া।

পরে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা স্লোগান দিতে দিতে দুপুর ১টা ১৫ মিনিটে এজলাস কক্ষ ত্যাগ করেন। এরপর ১টা ২০ মিনিটে এজলাস ত্যাগ করেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ।

এজলাস কক্ষ ত্যাগ করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতারা আইনজীবী সমিতিতে খন্ড খন্ড মিছিল করছেন।

সকালে আদালতে খালেদার পক্ষে জামিন শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী সমিতির আহ্বায়ক খন্দকার মাহবুব হোসেন, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি জয়নাল আবেদীন, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন, এজে মোহাম্মদ আলী, নিতাই রায় চৌধুরী, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজলসহ শতাধিক আইনজীবীরা। তরুণ আইনজীবীদের দাবি, তারা খালেদার জামিন না নিয়ে এজলাস ত্যাগ করবেন না। প্রয়োজনে তারা সারাদিন অবস্থান করবেন এজলাসে।

অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মমতাজ উদ্দিন, দুদকের পক্ষে খুরশীদ আলম খান উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া আওয়ামীপন্থি আইনজীবী বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এন আমিন উদ্দিন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু সহ অন্য আইনজীবীরা।

1