চট্টগ্রামের বিপিএল উত্তাপ ঢাকাকে ছোঁবে কি!

1

শীতের শুরুতে ঢাকায় পর্দা ওঠে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ আসরের। জাতিরজনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এবারের বিপিএল রূপ নিয়েছে বিশেষ আসরে। ফ্র্যাঞ্চাইজিহীন বিপিএল-এর ঢাকা পর্ব উত্তাপ ছড়াতে পারেনি। তুলনামূলক কম নামি তারকা দিয়েই শুরু হয়েছে এবারের বিপিএল।  এই পর্বের ৮ ম্যাচে দর্শকরাও  তেমন মাঠমুখো হননি। কিন্তু চট্টগ্রাম পর্বে বদলে গেছে চিত্র। বিশেষ করে রান বন্যায় শৈত্যপ্রবাহের মাঝেও ছিল উত্তাপ। ১২ ম্যাচের ৫ ইনিংসেই দলীয় স্কোর ছাড়ায় ২০০। দুটি সেঞ্চুরি এসেছে বিদেশি তারকা ডেভিড মালান ও আন্দ্রে ফ্লেচারের ব্যাট থেকে।

দেশিরাও ব্যাটে-বলে কম যাননি। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ব্যাট হাতে আলো কাড়েন ঢাকা প্লাটুনের ২৫ বছর বয়সী তারকা মেহেদী হাসান। আবার বল হাতে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মেহেদী হাসান রানার মতো তরুণ পেসারও কম যাননি। এখন পর্যন্ত ৫ ম্যাচে সর্বোচ্চ ১৩ উইকেট নিয়ে তালিকার শীর্ষে স্বদেশি এ বাঁহাতি পেসার।  অভিজ্ঞরাও পিছিয়ে নেই, ইমরুল কায়েস ব্যাট হাতে চ্যালেঞ্জার্সের হয়ে সর্বোচ্চ রানের মালিক। তার দলও ৭ ম্যাচে পাঁচ জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে।

দ্বিতীয় স্থানে রাজশাহী রয়্যালসের সংগ্রহ ৮ পয়েন্ট। সমান পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে মাশরাফি বিন মুর্তজার ঢাকা। মুশফিকুর রহীমের খুলনা টাইগার্স ৬ পয়েন্ট নিয়ে শেষ চারের লড়াইয়ে নিজেদের টিকিয়ে রেখেছে। অন্যদিকে শেষ তিন দল যথাক্রমে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স, সিলেট থান্ডার ও রংপুর রেঞ্জার্স সাগরিকায় নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে ব্যর্থই।

৬ ম্যাচে চার হার ও দুই জয়ে ৪ পয়েন্ট সংগ্রহ কুমিল্লার।  সিলেট থান্ডার ৬ ম্যাচে এক জয়, ৫ হারে ২ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান করছে তালিকার ৬ষ্ঠ স্থানে। আর রংপুর  রেঞ্জার্স পাঁচ ম্যাচে ২ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার তলনিতে। তবে ঢাকার দ্বিতীয় পর্বে এ তিন দলের সুযোগ রয়েছে ঘুরে দাঁড়ানোর। ২৭  থেকে ৩১শে ডিসেম্বর মিরপুর শেরেবাংলা মাঠে ৪ দিনে আরো ৮টি ম্যাচ হবে। যেখানে রংপুরের রয়েছে তিনটি ম্যাচ।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের  বাঁহাতি টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ইমরুল ৭ ম্যাচে ৩৯.১৬ গড়ে করেছেন ২৩৫ রান। সর্বোচ্চ ৬২। হাঁকিয়েছেন দু’টি ফিফটিও। দুই ম্যাচ খেলতে না পারলেও চট্টগ্রাম পর্বে নৈপুণ্য দেখিয়েছেন দেশের হয়ে সব ফরম্যাটের সফলতম ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। ভাইরাস জ্বর ও গ্রোয়েন ইনজুরি কাটিয়ে মাঠে ফেরা ঢাকা প্লাটুন ওপেনার তামিমের সংগ্রহ ৫ ম্যাচে ২০৪ রান।  আসরে সর্বাধিক রান সংগ্রহকারী কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের ৩২ বছর বয়সী বাঁহাতি ইংলিশ ব্যাটসম্যান ডেভিড মালান। ৬ ম্যাচে ৭৫ গড়ে করেছেন ৩০০ রান। হাঁকিয়েছেন একটি করে সেঞ্চুরি ও ফিফটি। দ্বিতীয় স্থানে আছেন খুলনা টাইগার্সের দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান রাইলি রুশো। ৫ ম্যাচে রুশোর সংগ্রহ ২৫৯ রান। রান সংগ্রহে তালিকার সেরা চার জনই  বিদেশি। জাতীয় দলে উপেক্ষিত ইমরুলের অবস্থান পাঁচে। এখন পর্যন্ত পেসাররাই এবারের বিপিএলে রাজত্ব করছেন। আর সেরা পাঁচ বোলারের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের তিনজন। শীর্ষে থাকা রানার সঙ্গে ৮ উইকেট নিয়ে চতুর্থ স্থানে সৌম্য সরকার। সমান উইকেটের মালিক রুবেল হোসেনের অবস্থান পাঁচে।

1