খালেদার মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে বিএনপির বিক্ষোভ

1

বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি এবং বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি’র অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। শনিবার এই বিক্ষোভ মিছিল করে তারা। বিক্ষোভ মিছিলটি পল্টন মোড় থেকে শুরু হয়ে বিজয়নগরের কাছাকাছি গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী। মিছিলে অংশগ্রহণ করেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মৎস্যজীবী দলের আহবায়ক রফিকুল ইসলাম মাহতাব, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি মাহমুদুর রহমান সুমন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান রনি, ছাত্রদল নেতা রাজু, রহিমসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী।
মিছিল শেষে এক পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারামুক্তি না দেয়ার উদ্দেশ্যই হলো-তাঁকে শারীরিক অসুস্থতায় রেখে জীর্ণ করতে করতে প্রাণ বিপন্ন করা। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইন, আদালত, বিচার সবকিছু হাতের মুঠোয় নিয়েছেন। জনগণের দাবি উপেক্ষা করে গুরুতর অসুস্থ বেগম জিয়াকে তাঁর পছন্দ মতো কোন বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার সুযোগ দিতেও বাধা দেয়া হচ্ছে। শারীরিক অবস্থার চরম অবনতি হওয়া সত্বেও বেগম জিয়ার প্রতি সরকারের নিষ্ঠুর আচরণে আজ দেশবাসী চরম ক্ষুদ্ধ।

তিনি বলেন, দখলদার প্রধানমন্ত্রী নিজের ক্ষমতাকে কন্টকমুক্ত করতে দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিক্রি করে দিতেও কুন্ঠিত হচ্ছেন না। বর্তমানে দেশের স্বাধীনতা যেকোন সময়ের চেয়ে সবচেয়ে বেশী হুমকির মুখে। নিজেদের স্বেচ্ছাচারী কাজে কেউ যাতে জবাবদিহিতা না চায় সেজন্যই তারা গণতন্ত্রকে গোরস্থানে পাঠিয়েছে। বেপরোয়া সরকার জনগণের কোন দাবিকেই আমলে না নিয়ে জনগণকে বন্দী করে রাখতেই অগণতান্ত্রিক দু:শাসন অব্যাহত রেখেছে। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলতে চাই-বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করে বিনা চিকিৎসায় আপনি অমানবিক কষ্ট দিচ্ছেন, আর কষ্ট না দিয়ে তাঁকে নি:শর্ত মুক্তি দিন। আমি আবারও অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

1