সভাপতি পদে পছন্দের নেতা গোলাম রসুল কলি

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:  রূপগঞ্জ উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার আওয়ামীলীগের সম্মেলন ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। এবারের সম্মেলনে তৃণমূল তাদের পছন্দের নেতা নির্বাচিত করতে নানা প্রস্তুতি নিয়েছে। জানুয়ারীর মাঝামাঝি সময়ে এ সম্মেলন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। এতে কাঞ্চন পৌরসভা আওয়ামীলীগের বর্তমান নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক কর্মীবান্ধব নেতা গোলাম রসুল কলিকে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করতে চায় দলের অধিকাংশ নেতাকর্মী।

দলীয় সূত্র জানায়, দলের এবং নেতাকর্মীদের প্রিয়মুখ হিসেবে পরিচিত গোলাম রসুল কলি ১৯৯০ সালে কাঞ্চন পৌরসভা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে গোলাম রসুল কলি ১৯৯১ সালে কাঞ্চন পৌরসভা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক থেকে কাঞ্চন পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর থেকে কাঞ্চন পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন গোলাম রসুল কলি। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডাররা গোলাম রসুল কলির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। একের পর এক মামলা-হামলার শিকার হন গোলাম রসুল কলি। এবারের সম্মেলনে তৃণমূলের রায়ে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। তাকে ঘিরেই এখন একাট্টা হচ্ছেন কাঞ্চন পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের নেতাকর্মীরা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে তার ব্যাপক প্রচার প্রচারণা। পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় শোভা যাচ্ছে তার নামে ছাপানো পৌষ্টার-ব্যানারও।

এদিকে দলের দুঃসময়ের কাণ্ডারি গোলাম রসুল কলিকে নতুন কমিটির সভাপতি হিসেবে দেখতে চান তৃণমূলের অধিকাংশ নেতাকর্মী। আসছে সম্মেলনে কর্মীবান্ধব এ নেতাকে সভাপতি করার লক্ষ্যে নেতাকর্মীদের বেশ তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে। তাকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকও সরব রয়েছে। সম্মেলনে এ পৌরসভার বেশির ভাগ নেতাকর্মীই গোলাম রসুল কলিকে সভাপতি হিসেবে পদায়নের জন্য মতামত ব্যক্ত করতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে।

কাঞ্চন পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকরা বলেন, কাঞ্চন পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের একই আওয়াজ- সভাপতি হিসেবে গোলাম রসুল কলির বিকল্প কাউকে চাই না, আসছে কমিটিতে দলের দুর্দিনের কাণ্ডারি এ নেতাকে সভাপতি হিসেবে দেখতে চায় তৃণমূল।

কাঞ্চন পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকরা আরো বলেন, দলের দুঃসময়ে যখন কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি, তখন আমরা নির্যাতিত নেতাকর্মীরা গোলাম রসুল কলির কাছে আশ্রয় পেয়েছিলাম। তিনি আমাদের অভিভাবক হিসেবে আশ্রয় দিয়ে আঁকড়ে ধরে দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছিলেন। এবারের সম্মেলনে তাকে পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি করা হলে এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের দুর্গ আরও শক্তিশালী হবে।

এ ব্যাপারে কাঞ্চন পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি প্রার্থী গোলাম রসুল কলি বলেন, আমি বহুদিন যাবৎ কাঞ্চন পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছি। সব সময়ই দলের দুর্দিনে নির্যাতিত নেতাকর্মীদের পাশে থেকেছি। ভবিষ্যতেও দলকে সুসংগঠিত করতে কাজ করে যাবো।

1