গনমাধ্যমের সহায়তায় প্রতারকচক্র বাচ্চুর হাত থেকে বাচতে চায় এতিম একটি পরিবার

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:  শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু গংদের হাত থেকে রক্ষা পেতে আইন শৃংখলা বাহিনীর সহযোগিতা কামনা করেছেন এ আর নীট কম্পোজিট (ডাইং ফ্যাক্টরী) এর মালিক মরহুম মজিবুর রহমান সোহেলের বিধবা স্ত্রী হাসনাত জাহান রুনু। রবিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে লিখিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত ভাবে জানান,আমার স্বামী মৃত মজিবুর রহমান সোহেল এআর কম্পোজিটের মালিক ছিলেন, প্রতারক চক্রের হোতা শাহাদাৎ হোসেন বাচ্চু আমাদের প্রতিষ্ঠানটি ভাড়া নেবার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। আমার স্বামী শর্তের কথা বললে বাচ্চু ২ দিনের সময় নেন। বাচ্চু জানান তার কিছু সমস্যা আছে। তাই চুক্তি পত্রটি তার স্ত্রী শাহনাজ পারভীনের নামে হবে। ২০১৯ সালের ১৫ জুলাই কিছু টাকা দিয়ে মুল চুক্তির কথা বলা হয়। কিন্তু সে কথা বাস্তবায়ন হয়নি। তারা আর যোগাযোগ না করায় অপর ব্যবসায়ী জাহিদুল ইসলাম জনিকে ফ্যাক্টরী ভাড়া দেয়া হয়। গত ১১ নভেম্বর আমার স্বামী প্রতিষ্ঠানে গিয়ে বাচ্চুকে পান। চুক্তির চুড়ান্ত না হওয়ায় ভাড়া,বিদ্যুৎ ও গ্যাস বিল পরিশোধ করে ৩০ নভেম্বর প্রতিষ্ঠান ছেড়ে দিতে বলেন। পরে বাচ্চু ও তার একসহযোগীকে শারিরীক ভাবে লাঞ্চিত সহ আটকে রাখেন। এতে আমার স্বামী মানসিক ভাবে ভেংগে পড়েন এবং ২০১৯ সালের ২১ নভেম্বর মৃত্যু বরন করেন। বাচ্চুকে প্রতিষ্ঠান ছেড়ে দিতে বললে তার শ্যালক সুলতানকে পরিচালনার দায়িত্ব দিয়ে গা ঢাকা দেন। পরে জানতে পারি বাচ্চু ১০ টি প্রতারণা মামলার আসামী হয়ে পুলিশের হাতে আটক রয়েছেন। বাচ্চুর গ্রেফতারের খবর শুনে সুলতানও পালিয়ে যায়। স্বামীর মৃত্যুর পর একমাত্র উর্পাজনের উৎস ফ্যাক্টরীটি ব্যবসায়ী জাহিদুল ইসলাম জনিকে ভাড়া প্রদান করি।
অপরদিকে প্রতারক বাচ্চুর স্ত্রীর বড়ভাই বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের কর্মকর্তা পরিচয় দানকারী জসিমউদদীন মাসুম তার বোন জামাইয়ের অন্যায়ের কথা স্বীকার করেন ফতুল্লা মডেল থানায় শালিশে।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন,কারাগারে থেকেও বাচ্চু তার স্ত্রী শাহনাজ পারভীন, শ্যালক সুলতান স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী সহযোগিতায় আবার ফ্যাক্টরী দখলের চেষ্টা করছেন। বর্তমান ভাড়াটিয়া জাহিদুল ইসলাম জনিকে নিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে। শুধু তাই নয় আমার ও আমার সন্তানদের চলাচল অনিরাপদ হয়ে উঠেছে। এ ব্যাপারে তিনি প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন । সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন হাসনাত জাহান রুনু,জাহিদুল ইসলাম জনি সহ মৃত সোহেলের এতিম ৪ সন্তান।

1