মালাইকার বিরোধিতা

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ  লকডাউনের মধ্যে মদের দোকান খোলার তীব্র বিরোধিতা করলেন বলিউড অভিনেত্রী মালাইকা আরোরা। ভারতে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে বাড়ানো হয়েছে লকডাউনের মেয়াদ। দেশব্যাপী শুরু হয়েছে তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউন। আগামী ১৭ই মে শেষ হবে এর মেয়াদ। কিন্তু তার আগেই মদের দোকান খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছেন অভিনেত্রী। তার বক্তব্য, লকডাউনের মধ্যে মদের দোকান খোলার ফলে বাড়বে গার্হস্থ্য হিংসা। এই নিয়ে তিনি একটি পোস্টও করেছেন।
দেশজুড়ে তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউন চললেও এর মধ্যে কিছুটা শিথিলতা এনেছে কেন্দ্র।
গ্রিন জোনগুলিতে ছাড়ার পরিমাণ রেড জোনের তুলনায় অপেক্ষাকৃত বেশি। রেড জোনে তৃতীয় পর্যায়েও আঁটসাঁট হবে লকডাউন। কিন্তু এরই মধ্যে খোলা থাকবে মদের দোকান। রেড জোন বা গ্রিন জোনের মধ্যে এক্ষেত্রে কোনো ফারাক নেই। রেড জোনে থাকা দিল্লিসহ একাধিক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ও রাজ্য মদের দোকান খোলার অনুমতি দিয়েছে কেন্দ্র। কেন্দ্র বলছে, কনটেইনমেন্ট জোন বাদে সমস্ত স্ট্যান্ড অ্যালোন ও সরকারের খাতায় নথিভুক্ত দোকান খোলা যেতে পারে। তবে সেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা প্রয়োজনীয়। মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধিও। কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর সোমবার থেকেই মদের দোকানগুলি তাদের শাটারটি খুলেছে। আর তারপর থেকেই লম্বা সারিতে স্টোরগুলির বাইরে দেখা যায়। এরপরই মালাইকা বলেন, মদের দোকান খোলার কী প্রয়োজন ছিল আমি এখনো বুঝতে পারছি না। খুব খারাপ সিদ্ধান্ত। এর ফলে ঝামেলা বাড়বে, গার্হস্থ্য হিংসা বাড়বে ও শিশুদের উপর নির্যাতন বাড়বে। তবে শুধু মালাইকা নন, জাভেদ আখতারও কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছেন। টুইটারে ক্ষোভ প্রকাশ করে জাভেদ আখতারের মন্তব্য, লকডাউনের সময় মদের দোকান খোলার প্রভাব আরো মারাত্মক হবে। একাধিক সমীক্ষাতেই দেখা গিয়েছে যে এই লকডাউন পর্বে গার্হস্থ্য হিংসার হার বেড়ে গিয়েছে অনেক মাত্রায়। কাজেই মদের দোকান খোলার সিদ্ধান্তে যে শিশু এবং মহিলারা সবচাইতে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবেন, তা বলাই বাহুল্য।

1