বাকপ্রতিবন্ধী ধর্ষণ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দের ঘটনাস্থল পরিদর্শন

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ  টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ সোনারগাঁওয়ে বাকপ্রতিবন্ধী ধর্ষণ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দের ঘটনাস্থল পরিদর্শন

৩০ জুলাই ২০২১ শুক্রবার বিকাল ৪ ঘটিকায় নারায়ণগঞ্জ জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ক্ষতিগ্রস্থদের চিকিৎসার জন্য জুলু রানী ও সুমনকে নগদ অর্থ প্রদান করেন এবং পরিবারের নিরাপত্তার স্বার্থে যথাযথ আইনি পরামর্শ গ্রহণের উদ্যোগ নেন।
ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানা যায়,সোনারগাঁয়ে কাফুরদ্দী গ্রামের আশ্রাব্দী মুনিঋষি পাড়ায় মৃত সেন্টু চন্দ্র দাসের মেয়ে শারীরিক ও বাক প্রতিবন্ধী জুলু রানী একই গ্রামের বাসিন্দা নারীলোভী ধর্ষক মালেক মিয়া (৬০) গত ১৮ই জুলাই রোজ সোমবার সকাল ৯:৩০ ঘটিকার সময় সেন্টু দাসের বাড়িতে সবাই যখন সবার কাজে ব্যস্ত ঠিক সেইসময় ফাঁকা পেয়ে শারীরিক ও বাক প্রতিবন্ধী জুলু রাণীকে শ্লীলতাহানি করে। এসময় জুলুর অস্বাভাবিক আর্তনাদ শুনে প্রতিবেশীসহ ঘরে বাহিরের অনেকে টের পেলে ধরা পরে মালেক মিয়া।

পরে জুলু রানীর মামাতো ভাই সুমন চন্দ্র দাস (২৮), (পিতা: শ্রীধাম চন্দ্র দাস) ঘর থেকে বের হয়ে উপস্থিত আমজনতার সামনে মালেক মিয়া কে চড় থাপ্পড় মেরে ছে‌ড়ে দেয়, বিষয়টি ছোট করে পরিবারের সম্মানার্থে ইজ্জতের ভয়ে।

ধর্ষিতা জুলুর মামাতো ভাই সুমন ব্যক্তিগত কাজে বাড়ির বাহিরে গেলে মালেক মিয়া ও তার ছেলে নয়নসহ আরও অনেক লোকবল নিয়ে, সোনারগাঁ থানাধীন পাচঁ পীর দরগাহর সামনে রাত আনুমানিক ০৮:৩০ মিনিটের সময়ে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র দ্বারা সজ্জিত হয়ে সুমনের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হ‌কি‌ষ্টিক ও লোহার রড দি‌য়ে মে‌রে সুমনকে হাত পায়ের হাড় ভে‌ঙ্গে ফে‌লে মালেক ও তার ছেলে নয়নসহ সাঙ্গপাঙ্গরা। হামলার ঘটনার একটি মামলা হয়েছে কিন্তু আজকে বিকেল পর্যন্ত এ ধর্ষনের ঘটনার কোন মামলা করা যায়নি। আজকে নির্যাতিত মেয়েটিকে থানায় ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য যে,গতকাল স্থানীয় চেয়ারম্যান ও পুলিশের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং আজ বিকালেও স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাবৃন্দ ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছেন। আসামি সহযোগী হিসেবে একজন গ্রেফতার হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর যুব ঐক্য পরিষদ এর নেতৃবৃন্দ এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং এ ঘটনার নারী নির্যাতন আইনে মামলা গ্রহন এবং জড়িত দোষীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবী জানান ।

1