রূপগঞ্জের কায়েতপাড়া ইউপি নির্বাচনে মন্ত্রী পরিবারের প্রভাব বিস্তার

1
ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকমঃনারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ উঠেছে রূপগঞ্জের এমপি এবং বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে। মন্ত্রীর স্ত্রী হাসিনা গাজী এবং ছেলে পাপ্পা গাজী প্রতিদিন বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে নির্বাচনী এলাকায় মোটর সাইকেল মহড়া দিচ্ছেন। পাশাপাশি একজন প্রার্থীর পক্ষ নিয়ে প্রতিপক্ষের প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকদের হুমকি ধামকি এবং ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। এছাড়া সন্ত্রাসী দিয়ে কায়েতপাড়া ইউনিয়নের চনপাড়া পূর্ণবাসন কেন্দ্রের ২২ হাজার ভোটারকে জিম্মি করে রেখেছেন মন্ত্রী ও তার ছেলে। সেখানে তাদের পছন্দের প্রার্থী ছাড়া অন্য কাউকে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

কায়েতপাড়া ইউনিয়ন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করা সবচেয়ে হেভিওয়েট প্রার্থী মিজানুর রহমান অভিযোগ করেন, স্থানীয় নির্বাচনে স্থানীয় জনগনের অংশ গ্রহন থাকে। কিন্ত মন্ত্রী গাজীর নগ্ন হস্তক্ষেপের কারনে কায়েতপাড়ার নির্বাচনকে সামনে রেখে এ এলাকার মানুষ আতংকে রয়েছে।  প্রতিদিন মন্ত্রীর ছেরে পাপ্পা গাজীর নেতৃত্বে হাজার হাজার বহিরাগত সন্ত্রাসী এসে ভোটার ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী এবং তাদের কর্মী সমর্থকদের হুমকি ধামকি এবং ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। তারা প্রকাশ্য অস্ত্রের প্রদর্শন এবং গুলিবর্ষন পর্যন্ত করছেন। তার মার্কেটে অগ্নি সংযোগ করেছেন। এছাড়া তার নির্বাচনের প্রধান সমন্নয়ক উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি খন্দকার আবুল বাশার টুকুর বাড়ি ভাংচুর ও তাকে অপহরন করেছেন।
আরেক চেয়ারম্যান প্রার্থী হুমায়ন কবির বাবু জানান, তাকে মন্ত্রীর ছেলে হুমকি দিয়েছে প্রচারনায় অংশ নিলে হত্যা করে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হবে। মন্ত্রী ও তার পরিবারের এমন প্রকাশ্য হস্তক্ষেপে চরমভাবে নষ্ট হচ্ছে শান্তিপূর্ণ ভোটের পরিবেশ। আতংকিত হচ্ছেন ভোটাররা। ঘোটালে হচ্ছে পরিস্থিতি। চরম ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে সারাদেশের মধ্য কায়েতপাড়াকে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন। সে এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে র‍্যাব, বিজিবি আর বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ।
আগামী ১১ নভেম্বর কায়েতপাড়ায় ভোটগ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। এখানে ভোটার রয়েছেন ৫৩১৮০ জন।
1