সামলান অন্যথায় পরিস্থিতি বেকায়দায় চলে যাবে, কাউকে কিন্তু ছাড় দেবো না- কাজিম উদ্দিন

1

ডেইলি  নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকমঃ বন্দর উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জাতীয় পাটির প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন প্রধান বিজয়ী হয়ে তার কর্মীরা আওয়ামীলীগের প্রার্থী কাজিম উদ্দিন প্রধানের কর্মীদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ১০ জনকে পিটিয়ে আহতসহ বাড়ি ঘড় ভাংচুর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাটের ঘটনায় থানায় একাধিক অভিযোগ হয়েছে বলে জানা গেছে । শুক্রবার (১২ নভেম্বর) সকাল থেকে সন্ধা পর্যন্ত কলাগাছিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে বলে জানতে পারা যায়। আহত জহির উদ্দিন বন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। তার ঘরের দরজা ভেঙ্গে ভাংচুর, সোকেজে থাকা ১০ ভরি স্বর্ণালংকার লুটপাট করে নিয়ে যায়।
বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কাজিম উদ্দিন প্রধান বলেন, আমার নৌকার পক্ষে কলাগাছিয়া ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আক্তার হোসেন, ইউছুপ মেম্বার, হালিম মিয়া, ইয়াসমিন, হান্নান প্রধান, জহির মিয়া, ইবরাহিম টুটুল, তাইজুল ইসলাম, মামুন কাজ করায় তাদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তাদের পিটিয়ে আহত করে এবং তাদের বাড়ি ঘড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বাংচুরসহ লুুটপাট করেন লাঙ্গল প্রার্থী দেলোয়ার প্রধানের লোকজন। আমরা এর প্রতিবাদ করতে পারতাম, আমরা করলে তারা কলাগাছিয়া থাকতে পারবেনা কিন্তু তা করতে চাই না কারণ আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি আমারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আমরা বন্দর থানার ওসিকে অবগত করেছি এবং থানায় গিয়ে অভিযোগ দেবো।
তিনি আরো বলেন, আমি জানতে পারলাম আমার কর্মীদের বাড়িতে হামলা করেছে দেলোয়ার প্রধানের ছেলে সোহান প্রধানের নের্তৃত্বে আবু বক্কর, এমরান, বিজয়, জামান, রাজন, আনাস, আসিফ, পিয়ার, আরমান প্রধান, লাভলু, সামছুল হক, সাদ্দাম, ফজলুল করিম, মো: হোসেন, মো: আসাদ, আব্দুল মোতালেব, সেলিম, সোহেল, রাজু, নিহাদ, হানিফসহ ২০ থেকে ২৫ জন দেশি অস্ত্রসজ্জ নিয়ে এ হামলা চালিয়েছে। শুক্রবার সকালে প্রকাশ্য দক্ষিণ সেলসারদী আবু হালিমের দোকানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক তান্ডব চালিয়ে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি করে। দোকান মালিক নৌকা দিয়ে খাল পার হয়ে আলী নগর এলাকায় গিয়ে প্রানে রক্ষা পায় বলে তিনি কান্ন জড়িত কন্ঠে বলেন। ২ নং মাধবপাশা এলাকার ইউসুফ প্রধানের ছেলে মুছার মুরগীর ফার্মে হামলা চালিয়ে প্রায় ২ শতাধিক মুরগী লুট করে নিয়ে যায়। ফরাজীকান্দা বালিয়া এলাকার ইয়াসমিনের প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকার মূল্যের গরুকে বিষ সেবন করিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে বলে ইয়াসমিন বেগম জানান। তবে গরুর অবস্থা আশংকাজনক।
আওয়ামীলীগের প্রার্থী কাজিম উদ্দিন প্রধান বলেন, নির্বাচনে জয় – পরাজয় হবেই। নির্বাচনে সুক্ষ কারচুপি হয়েছে। নির্বাচনে জয়- পরাজয় হবে। ১ জন জয়ী হবে এটাই স্বাভাবিক। আমার নির্বাচন করার অপরাধে দেলোয়ারের সন্ত্রাসী পেটুয়া বাহিনী দোকান ভাংচুর, লুটপাট, বাড়িঘরে হামলা, নীরহ প্রানী গরুকেও ছাড় দেয়নি তেলচোর দেলোয়ার প্রধান বাহিনী। দেলোয়ার বাহিনীকে আবারও হুশিয়ারী করে বলেন, তুমি দেলোয়ার এখনও সময় আছে সুধরাও। অন্যথায় জেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগকে জানাবো। ইতিমধ্যে কেন্দ্রীয় ও জেলা আওয়ামীলীগের নেতাদের জানিয়েছি। কেন্দ্রীয় নেতারা অচিরেই তদন্ত করতে আসবে। কাজিম প্রধান স্বানীয় সাংসদ সেলিম ওসমান ভাই ও নারায়ণগঞ্জ -৪ আসনের প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানের প্রতি বিশেষ আহবান করে বলেন, এখনো সময় আছে দেলোয়ারকে সামলান, অন্যথায় পরিস্থিতি সামাল দিতে বেকায়দায় পড়তে হবে। আমি আওয়ামীলীগ করি, অনেক কিছু বলতে চাইলেও পারি না। নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দেলোয়ার বাহিনী যে অপকর্ম শুরু করেছে তা মানতে কষ্ট হচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের হয়ে পরাজিত হয়ে যে কাজ আমাদের করার কথা, সেটা দেলোয়ার বাহিনী করছে। দেলোয়ারকে কে সাহস দিচ্ছে তাও দেখতে হবে। কাউকে কিন্তু ছাড় দেয়া হবে না।
চেয়ারম্যান দেলোয়র হোসেন প্রধানের মোবাইল নাম্বারে একাধিকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।
বন্দর থানার ওসি দীপক চন্দ্র শাহ জানান, খবর পেয়ে আমি নিজে ঘটনাস্থল ঘুরে এসেছি। আমাকে মৌখিক ভাবে বলেছে কিন্তু থানায় এখনো কোন অভিযোগ দেয়নি।
এদিকে আওয়ামীলীগ হতে গনহারে পদত্যাগের গুঞ্জন বন্দরের সর্বত্র এমনকি ফেইসবুকে ইতিমধ্যে ভাইরাল। বন্দরের কলাগাছিয়া ইউনিয়নে নির্বাচন সংহিতা, হামলা, মামলা ২টি বলয় অনর। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে জেলার শীর্ষ নেতাসহ স্থানীয় সাংসদ সেলিম ওসমান ও নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের প্রভাবশালী সাংসদ শামীম ওসমানের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা তৃণমূলের নেতাকর্মীদের।

1