“সিয়াম” হত্যা মামলার অটোরিক্সা উদ্ধারসহ আরো ২ জন আসামী র‌্যাব-১১ কর্তৃক গ্রেফতার

1

র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধের উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতার, অপরাধ দমন ও আইন শৃংখলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তাছাড়া যে কোন চা ল্যকর মামলার রহস্য উদঘাটন ও অপরাধীদের গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব ছায়া তদন্ত করে আসছে।

গত ১৭ মে ২০২২ তারিখে নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানাধীন আলীরটেক তৈলখিয়ার চর জনৈক আতাউর রহমান ও বাদলের পরিত্যক্ত ইট ভাটায় অটোরিক্সা চালক সিয়াম এর অর্ধগলিত লাশ পাওয়া যায় এবং ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নং-২২, তারিখ-১৮/০৫/২০২২ইং, ধারা- ৩৯৪/৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড। নৃশংস এই হত্যাকান্ডটি এলাকায় চা ল্যের সৃষ্টি করে। এই ঘটনা স্থানীয় ও জাতীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ আকারে প্রকাশিত হয় ও ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে।

উল্লেখিত বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্যাদি সংগ্রহ সহ চা ল্যকর এই হত্যা মামলার আসামীদেরকে গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-১১, সিপিসি-১ এর একটি গোয়েন্দা দল ছায়া তদন্ত শুরু করে। গত ২০/০৫/২০২২ ইং তারিখে উক্ত নৃশংস ও চা ল্যকর হত্যা মামলার প্রধান দুই আসামী ইয়ামিন ও নবী হোসেনকে র‌্যাব-১১, সিপিসি-১ কর্তৃক গ্রেফতার করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২২/০৫/২০২২ ইং তারিখে র‌্যাব-১১, সিপিসি-১ এই নৃশংস হত্যাকান্ডে সরাসরি অংশগ্রহনকারী আসামী জুম্মান (১৮)’কে মুন্সীগঞ্জের টংগীবাড়ী আলদি বাজার থেকে নিহত সিয়ামের অটোরিক্সা উদ্ধারসহ এবং মোঃ হাসান (১৯)’কে ঢাকার গেন্ডারিয়া থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

৪। গ্রেফতারকৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা উক্ত ঘটনার সাথে সরাসরি অংশগ্রহণের কথা স্বীকার করে। ধৃত আসামীদের দেওয়া তথ্য মতে তারা দুজন ও অন্যান্য আসামীরা পরষ্পর যোগসাজসে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে সিয়ামকে খুন করে অটোরিক্সাটি নিজেদের দখলে নেয় এবং গ্রেফতার এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপন করে। ধৃত আসামী জুম্মানের দেওয়া স্বীকারোক্তি ও দেখানো মোতাবেক মুন্সীগঞ্জের টংগীবাড়ী আলদি বাজার থেকে অটোরিক্সাটি উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামীদেরকে নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানায় হস্তান্তর করা রয়েছে।

1