অবশেষে আলো ছড়ালেন বোলাররা

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকম: ২০৯ রানের ওপেনিং জুটির পর দলীয় ৩৮২ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতন হয় শ্রীলঙ্কার। হতাশাজনক শুরুর পর ম্যাচে ফেরে বাংলাদেশ। আর টাইগারদের হাত গলে ক্যাচ বেড়িয়ে না গেলে লঙ্কানদের আরো চাপে রাখা যেতো সন্দেহ নেই। বল হাতে দাপুটে নৈপুণ্য ধরে রেখেছেন তাসকিন আহমেদ। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কার পতন হওয়া ছয় উইকেটের তিনটিই তাসকিনের। এছাড়া তার ডেলিভারিতে সুযোগ তৈরি হয়েছিল বেশ ক’বার। গতকাল পাল্লেকেলেতে আলোক স্বল্পতার কারণে দিনের ২৬ ওভার বাকি রেখে খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা। তখন শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ছিল ৪৬৯/৬।
ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ১৭৮ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারায় লঙ্কানরা। বাংলাদেশ দলের বাজে ফিল্ডিংয়ের সুযোগে সপ্তম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৮৭ রানের জুটি গড়েন নিরোশান ডিকওয়েলা (৬৪) ও রমেশ মেন্ডিস (২২)। স্লিপে আবারো ক্যাচ হাতছাড়া করেন নাজমুল হোসেন শান্ত। এবারও তাসকিনের বলে। এর আগে ব্যক্তিগত ২৮ রানে তাসকিনের বলে লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নের ক্যাচ ছাড়েন শান্ত। পরে করুণারত্নে করেন ১১৮ রান। পাল্লেকেলেতে গতকাল পর পর দুই ওভারে নিশাঙ্কা (৩০) ও ওশাদা ফার্নান্দোর (৮১) উইকেট তুলে নেন তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান মিরাজ। এতে ইনিংসের ১৩৬.২তম ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৩৮২/৬-এ। আর লঙ্কান ইনিংসের ১৫৫.৫তম ওভারে বন্ধ হয় খেলা। বাংলাদেশি পেসার তাসকিন আহমেদের এক বাউন্সারে লঙ্কান ব্যাটসম্যান রমেশ মেন্ডিস পরাস্ত হওয়ার পরপরই আলোক স্বল্পতার কারণে খেলা বন্ধ করে দেন আম্পায়াররা। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের বল হাতে দারুণ নৈপুণ্য দেখান তাসকিন আহমেদ। ৩২.৫ ওভারের স্পেলে ১১৯ রানে তিন উইকেট নেন তাসকিন। একটি করে উইকেট নেন অপর পেসার শরিফুল ইসলাম, বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম ও অফস্পিনার মিরাজ। বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার টেস্ট সিরিজে আলোও বেশ বড় জায়গা করে নিয়েছে। রানবন্যার প্রথম টেস্টে আলোকস্বল্পতা ও বৃষ্টি বাগড়া দিয়েছিল। দ্বিতীয় টেস্টেও হাজির প্রকৃতির বাধা। দ্বিতীয় দিনের প্রথম দুই সেশনে দারুণ করেছেন বোলাররা। প্রথম সেশনে মাত্র ৪৩ রান তুলতে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলা লঙ্কানরা দ্বিতীয় সেশনে খোয়ায় দুই উইকেট। দ্বিতীয় দিনের দুটো সেশনই তাই বাংলাদেশের দখলে ছিল। কিন্তু তৃতীয় সেশনটা কারও ভাগে পড়েনি। গতকাল বৃষ্টি আর স্বল্প আলো দিনের খেলা থেকে ২৪ ওভার কেড়ে নেয়।

২৯১/১ সংগ্রহ নিয়ে দিন শুরু করেছিল শ্রীলঙ্কা। দ্বিতীয় দিনে ১৭৮ রান তুলতেই ৫ উইকেট হারায় তারা। দিনের শুরু থেকেই দারুণ বল করেন তাসকিন। সেঞ্চুরিয়ান লাহিরু থিরিমান্নেকে (১৪০) বাড়তি লাফিয়ে ওঠা বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিতে বাধ্য করেন তিনি। এরপর অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসকে শূন্য রানেই ফোরাতে পারতেন তিনি। কিন্তু বল ম্যাথিউসের ব্যাট ছুঁয়ে কিপারের হাতে গেলেও আবেদন না করায় উইকেটবঞ্চিত থাকে বাংলাদেশ। অবশ্য একটু পর তাসকিনের বলে ওই লিটনের গ্লাভসেই ধরা পড়েন শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক।। এর পর তাসকিন বিপজ্জনক হয়ে ওঠা ৫৪ রানের পঞ্চম জুটি ভাঙেন পাথুম নিশাঙ্কার স্টাম্প উপড়ে নিয়ে। এর পর লঙ্কানদের সংগ্রহ সমৃদ্ধ করেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান নিরোশান ডিকওয়েলা। চাুবিরতির পর ৫৯ বলে ৪৪ রান তোলে শ্রীলঙ্কা। এতে মূল ভূমিকা ডিকওয়েলার। ৬৪ বলে ৭ চারে ৬৪ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। একবার জীবন পাওয়া মেন্ডিস অপরাজিত থাকেন ২২ রানে। সিরিজের প্রথম টেস্টে পাল্লেকেলের ব্যাটিংবান্ধব পিচে শ্রীলঙ্কার একমাত্র ইনিংসে বল হাতে তিন উইকেট নেন তাসকিন আহমেদ।

1