দেশে ফেরায় মানা, মালদ্বীপে আশ্রয় নিচ্ছেন অসি ক্রিকেটাররা!

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকমকঃ নিজের দেশেই ফেরার উপায় নেই! কি একটা অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়লেন আইপিএলে আসা অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার, কোচ, সাপোর্ট স্টাফরা। ভারতে করোনার ভয়াবহতায় সেই দেশ থেকে সব ধরনের ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান সরকার।

নতুন নিয়ম অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ায় নামার ১৪ দিন আগেও ভারত ছিলেন এমন নাগরিকদের সোমবার থেকে দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই নিয়ম না মানলে সাজা হিসেবে পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল কিংবা ৬৬ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডই জুটতে পারে। এই কঠোর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে কমপক্ষে ১৫ মে পর্যন্ত।

এদিকে আইপিএলও স্থগিত হয়ে গেছে। এমতাবস্থায় কী করে দেশে ফিরবেন টুর্নামেন্টে অংশ নিতে এসে ভারতে আটকে পড়া অস্ট্রেলিয়ানরা? ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, ধারাভাষ্যকারসহ আইপিএলের বায়ো-বাবলে আছেন প্রায় ৪০ জন অস্ট্রেলিয়ান।

ডেভিড ওয়ার্নার, প্যাট কামিন্স, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, স্টিভেন স্মিথের মতো খেলোয়াড় যেমন আছেন; কোচ হিসেবে আছেন রিকি পন্টিং, সাইমন ক্যাটিচরা। তারা কিভাবে দেশে ফিরবেন? অস্ট্রেলিয়ান সরকার যে সবার জন্যই কঠোর। জানা গেছে, ভারতে আইপিএলে আটকে পড়া অস্ট্রেলিয়ানরা দেশে ফিরতে না পেরে বাধ্য হয়েই এই কদিন আশ্রয় নিতে পারেন মালদ্বীপে।

আইপিএলে দায়িত্ব পালন করা অস্ট্রেলিয়ান ধারাভাষ্যকার মাইকেল স্ল্যাটার ইতিমধ্যে মালদ্বীপে পারি জমিয়েছেন। তার পথ ধরেই বাকিরাও সেখানে পৌঁছে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি গণমাধ্যম।

ব্যতিক্রম হতে পারেন কেবল অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার ড্যান ক্রিশ্চিয়ান। ইংলিশ কাউন্টিতে খেলতে যাওয়ার কথা তার। যদিও যুক্তরাজ্য ভারত থেকে এখন কেবল স্বদেশি নাগরিকদেরই দেশে ফেরার অনুমতি দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে ক্রিশ্চিয়ানেরও সরাসরি হয়তো যাওয়া হবে না। দুবাইয়ে থেকে তারপর যুক্তরাজ্যে যাওয়া লাগতে পারে তার। নিজের দেশেই ফেরার উপায় নেই! কি একটা অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়লেন আইপিএলে আসা অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার, কোচ, সাপোর্ট স্টাফরা। ভারতে করোনার ভয়াবহতায় সেই দেশ থেকে সব ধরনের ফ্লাইট বন্ধ করে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ান সরকার।

নতুন নিয়ম অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ায় নামার ১৪ দিন আগেও ভারত ছিলেন এমন নাগরিকদের সোমবার থেকে দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এই নিয়ম না মানলে সাজা হিসেবে পাঁচ বছর পর্যন্ত জেল কিংবা ৬৬ হাজার অস্ট্রেলিয়ান ডলার জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডই জুটতে পারে। এই কঠোর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে কমপক্ষে ১৫ মে পর্যন্ত।এ দিকে আইপিএলও স্থগিত হয়ে গেছে। এমতাবস্থায় কী করে দেশে ফিরবেন টুর্নামেন্টে অংশ নিতে এসে ভারতে আটকে পড়া অস্ট্রেলিয়ানরা? ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, ধারাভাষ্যকারসহ আইপিএলের বায়ো-বাবলে আছেন প্রায় ৪০ জন অস্ট্রেলিয়ান।ডেভিড ওয়ার্নার, প্যাট কামিন্স, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, স্টিভেন স্মিথের মতো খেলোয়াড় যেমন আছেন; কোচ হিসেবে আছেন রিকি পন্টিং, সাইমন ক্যাটিচরা। তারা কিভাবে দেশে ফিরবেন? অস্ট্রেলিয়ান সরকার যে সবার জন্যই কঠোর। জানা গেছে, ভারতে আইপিএলে আটকে পড়া অস্ট্রেলিয়ানরা দেশে ফিরতে না পেরে বাধ্য হয়েই এই কদিন আশ্রয় নিতে পারেন মালদ্বীপে।আইপিএলে দায়িত্ব পালন করা অস্ট্রেলিয়ান ধারাভাষ্যকার মাইকেল স্ল্যাটার ইতিমধ্যে মালদ্বীপে পারি জমিয়েছেন। তার পথ ধরেই বাকিরাও সেখানে পৌঁছে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি গণমাধ্যম।

ব্যতিক্রম হতে পারেন কেবল অস্ট্রেলিয়ান অলরাউন্ডার ড্যান ক্রিশ্চিয়ান। ইংলিশ কাউন্টিতে খেলতে যাওয়ার কথা তার। যদিও যুক্তরাজ্য ভারত থেকে এখন কেবল স্বদেশি নাগরিকদেরই দেশে ফেরার অনুমতি দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে ক্রিশ্চিয়ানেরও সরাসরি হয়তো যাওয়া হবে না। দুবাইয়ে থেকে তারপর যুক্তরাজ্যে যাওয়া লাগতে পারে তার।ভারত থেকে দেশে ফিরতে না পারায় উদ্বিগ্ন কামিন্স ফক্স স্পোর্টসের সঙ্গে আলাপে বলেছেন, ‘যখন আমরা অস্ট্রেলিয়া ছাড়ি, জানতাম দেশে ফিরলে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কিন্তু এভাবে সীমান্ত বন্ধ হয়ে যাবে আমরা ভাবিনি। এর ফলে এখানে থাকা অস্ট্রেলিয়ানরা বেশ চিন্তায় পড়ে যায়। কিন্তু আমরা তো এই টুর্নামেন্টে জুনের প্রথমভাগ পর্যন্ত চুক্তি করেছি।আশা করছি ১৫ মে সীমান্ত খুলে যাবে, আমরাও ফিরতে পারব। দিকে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অন্তবর্তীকালীন প্রধান নির্বাহী নিক হকলি, টিম পারফরম্যান্স প্রধান বেন অলিভার এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাহী টড গ্রিনবার্গ উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ে আজ (মঙ্গলবার) রাতে জরুরী মিটিংয়ে বসবেন বলে জানা গেছে।

1