তবু সবচেয়ে বেশি বেতন মেসির

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকম: দিন হতে চললো ক্লাবহীন রয়েছেন লিওনেল মেসি। গত ৩০শে জুন শেষ হয়েছে বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তি। আর্জেন্টাইন সুপারস্টার পরিবার নিয়ে ছুটি কাটাচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে। যেখানে নিজস্ব বাড়ি রয়েছে মেসির। আর্জেন্টিনাকে কোপা আমেরিকার শিরোপা জেতানোর কয়েকদিন পরই পাড়ি জমিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। ছুটিতে থাকলেও নিজের ভবিষ্যত নিয়ে এগোচ্ছেন মেসি। ইউরোপের সংবাদমধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী, আরো পাঁচ বছর বার্সেলোনায় থাকছেন মেসি। এজন্য বেতন কমাচ্ছেন অর্ধেক।

স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন চলে আসে, এরপরও কি সবচেয়ে বেশি বেতন পাওয়া ফুটবলারদের তালিকার শীর্ষে থাকবেন মেসি? বৃটিশ দৈনিক দ্য সান জানিয়েছে, ৫০ শতাংশ বেতন কমানোর পরও এই তালিকার এক নম্বর স্থানেই থাকছেন মেসি। মেসির বেতনের অঙ্কটা বার্সেলোনা সব গোপনই রাখার চেষ্টা করে গেছে। তবে সংবাদমাধ্যমে একাধিকবার মেসির বেতনের অঙ্ক ফাঁস হয়েছে। সবশেষ চুক্তি অনুযায়ী সপ্তাহে মেসি পেতেন প্রায় ২.৫ মিলিয়ন বৃটিশ পাউন্ড। বার্সেলোনার সঙ্গে হতে চলা নতুন চুক্তিতে মেসি পাবেন ১.২ মিলিয়ন পাউন্ড।

মাঠের ফুটবলের মতো বেতনের অঙ্কেও মেসির সঙ্গে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর লড়াই চলছে বহুদিন ধরে। রিয়াল মাদ্রিদ ছাড়ার পরও সেটা বহাল রয়েছে। মেসির বেতন কমলেও এক নম্বরে ওঠা হচ্ছে না রোনালদোর। জুভেন্টাস তারকার সাপ্তাহিক বেতন ৯ লাখ পাউন্ড। তৃতীয় স্থানে ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার নেইমার। পিএসজি থেকে নেইমার পান সপ্তাহে ৬ লাখ পাউন্ডের কিছু বেশি। চার ও পাঁচে রয়েছেন লুইস সুয়ারেজ ও আঁতোয়ান গ্রিজম্যান। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার সুয়ারেজ সপ্তাহে পান ৫ লাখ ৭৫ হাজার পাউন্ড। বার্সেলোনা ফরাসি তারকা গ্রিজম্যানও পান সমাপরিমাণ সাপ্তাহিক বেতন।

মেসির বেতন কমানোর নেপথ্যে

দলগুলোর মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে বেতনের অঙ্ক নির্দিষ্ট করে দিয়েছে লা লিগায়। বার্সেলোনা তা ছাড়িয়ে গেছে আগেই। তবে নতুন মৌসুমের আগে বেতনের অঙ্কটা লা লিগার নিয়ম অনুযায়ী ঠিক করতে হবে বার্সেলোনাকে। স্প্যানিশ দৈনিক মার্কা’র মতে, মেসির অর্ধেক বেতন নেয়ার প্রধান কারণ এটাই। ৩৪ বছরে পা রাখলেও দারুণ ছন্দ ধরে রেখেছেন মেসি। বার্সেলোনার হয়ে গত মৌসুমে জিতেছেন কোপা দেল’রে। ক্লাব ফুটবলে সব প্রতিযোগিতায় মেসি খেলেছেন ৪৭ ম্যাচ। ম্যাচসেরা হয়েছেন ২৬বার। করেছেন ৩৮ গোল ও ১৪ অ্যাসিস্ট। ৩০ গোল করে লা লিগার সর্বোচ্চ গোলদাতাও হয়েছেন। কোপা আমেরিকায় ৪ গোল ও ৫ অ্যাসিস্ট। আসরে সবচেয়ে বেশি গোল ও অ্যাসিস্ট করে সেরা ফুটবলারের পুরস্কারও উঠেছে মেসির হাতে। জাতীয় দলের হয়ে প্রথমবারের মতো জিতেছেন গোল্ডেন বুট। ২০২১ সালে আর্জেন্টিনার হয়ে ৯ ম্যাচে ৫ গোল ও ৫ অ্যাসিস্ট। দুর্দান্ত এই ফর্মটা আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত টেনে নিতে পারলেই সপ্তমবার ব্যালন ডি’অর জিতবেন মেসি।

1