রবিবার খুলছে রপ্তানিমুখী কারখানা, অবশেষে তৈরি পোশাক মালিকদের প্রত্যাশা পূরণ

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ  টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ   দেশের তৈরি পোশাক খাতের উদ্যেক্তারা ঈদের ছুটির আগেই এই খাতের সংগঠন বিজিএমএই সভাপতি ফারুক হাসান আশা করেছিলেন সরকার এই খাতের গুরুত্ব বিবেচনা করে আগামী ১ আগস্ট থেকে কারাখানা খোলার সুযোগ দেওয়া হবে। একই সঙ্গে শ্রমিকদের একই তারিখে কারখানা খোলা হতে পারে। তারা যেন সেই প্রস্তুতি রাখেন। অবশেষে সেই আশা পূরণ হলো।

এই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তৈরি পোশাক খাতের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি মো. ফারুক হাসান কালের কণ্ঠকে বলেন, আমাদের আশা পূরণ হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বড় ধরনের সাহসী উদ্যেগ নিয়েছেন। এর ফলে দেশের রপ্তানি খাত বড় ধরনের ঝুঁকি থেকে বেঁচে গেল। আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ।

শ্রমিকদের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, আপনার কারখানায় আসার সুযোগ থাকলে কাজে যোগ দিন। কেউ গ্রামে চলে গেলে লকডাউনের পর কাজে যোগ দিতে পারেন। কারো চাকরি যাবে না। নায্য মজুরি থেকেও বঞ্চিত হবে না। কারো চাকরি গেলে আমাদের জানাবেন। আমরা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেব।

এছাড়া মালিকদের প্রতি আহবান জানিয়ে ফারুক হাসান বলেন, প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে সবাই কারখানায় কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা চালু করবেন। একই সঙ্গে শ্রমিকরা তাদের নায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত না হয় সেই বিষয়ে খেয়াল রাখবেন।

এদিকে ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্প-কারখানা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে দফায় দফায় দাবি জানানোর পরিপ্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সূত্র থেকে জানা গেছে।

শুক্রবার বিকেলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব রেজাউল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে রপ্তানিমুখী শিল্প খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত জানায় সরকার।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী ১ আগস্ট সকাল ৬টা থেকে রপ্তানিমুখী সকল শিল্প ও কল-কারখানা আরোপিত বিধি-নিষেধের আওতা বহির্ভূত রাখা হলো।

এর মাধ্যমে ৫ আগস্ট পর্যন্ত টানা লকডাউন চালিয়ে যাওয়ার সরকারি সিদ্ধান্তে বদল আসল। গত ১৩ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব রেজাউল ইসলামের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে ঈদের একদিন পর অর্থাৎ ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ১৪ দিনের টানা লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছিল সরকার। ঈদের পর শুরু হওয়া লকডাউনের মধ্যে ব্যবসায়ীরা কয়েক দফা সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করে রপ্তানিমুখী শিল্প কলকারখানাকে লকডাউনের বাইরে রাখার আবেদন জানায়। কিন্তু সরকার বরাবরই কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে দিয়েছে।

সার্বিকভাবে লকডাউন পরিস্থিতি মূল্যায়নে গত রবিবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের নেতৃত্বে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি বৈঠক মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অনুষ্ঠিত হয়। সেই বৈঠকেও ৫ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত পুর্নব্যক্ত করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। ওই বৈঠকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী, আইসিটি প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব, উচ্চ পর্যায়ের সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী কর্মকর্তা, পুলিশের আইজিপি, বিজিবির ডিজিসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর-সংস্থার শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সরকারের পক্ষ থেকে বার বার কঠোর অবস্থানের কথা প্রকাশ করলেও শেষ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের দাবি মেনে নিল সরকার। এর কারণ জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের সূত্র কালের কণ্ঠকে বলেন, আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত নানাবিধ যৌক্তিক কারণে এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। তবে অন্য ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধের কঠোরতা বজায় থাকবে।

1