নগরীতে যথারীতি জয় বাংলার মেয়র প্রার্থী বাবুর ব্যতিক্রমি গণসংযোগ

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম:  কথা রেখেছেন কামরুল ইসলাম বাবু। জয় বাংলা নাগরিক কমিটির মনোনীত প্রার্থী হয়ে বলেছিলেন, ব্যতিক্রমি পথচলায় থেকেই তিনি নারায়ণগঞ্জের নগরবাসীর জন্য আদর্শ হয়ে দাঁড়াতে চান। তাই-ই করলেন। সেভাবেই শুরু করলেন।

রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর শুরু করেছেন গণসংযোগ। আসন্ন নাসিক নির্বাচনের মেয়র পদপ্রাথী কামরুল ইসলাম বাবু এক্সপ্রেস তাই যেন থামছে না। তিনি এবার বলছেন, ভোট চাইতে আসিনি, এসেছি এই নারায়ণগঞ্জের জন্য কি করতে চাই, তা জানাতে। হাতে থাকা লিফলেট বিতরণ করে বললেন, নির্বাচনী ইশতেহারে আপনারা পাবেন কি করতে চাইছি সে সম্যক মোটামোটি ধারণা। কিন্তু চূড়ান্ত রূপরেখা আমি নির্বাচন অনুষ্ঠানের এক সপ্তাহ আগে নগরবাসীর জন্য তুলে ধরব। এখন লিফলেটে লিখিত ধারভাষ্যে যা দেখতে পাবেন, তা আমাদের প্রাথমিক পরিকল্পনার ধারবাহিকতা মাত্র।

এদিকে কামরুল ইসলাম বাবু নগরীর ১১ নং ওয়ার্ডে ৫টি উপদল সাজিয়ে জয় বাংলা নাগরিক কমিটির নেতাকর্মীদেরকে নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী লড়াইয়ে এদিন নেমে পড়েন।

বাবু প্রাথমিক প্রচারণায় জানিয়েছেন, শিল্প ও বন্দর নগরী হিসাবে নারায়ণগঞ্জের পরিচিতি তো বহুযুগ ধরে ছিলই। এবার আমরা নারায়ণগঞ্জকে পর্যটন নগরী হিসাবে গড়ে তুলবো। তখন আপনারা দেখতে পাবেন যে, আমাদের শহর বদলে গেছে। কথিত হয়ে নয়, সত্যিকারের সবুজ নারায়ণগঞ্জ হয়ে পড়বে আমাদের এই ঐতিহ্যবাহী নগরী।

বাবু গণসংযোগকালে বলেন, আমি ধারা ভাঙতে চাই। যেন আজ থেকে পাঁচ বছর পর আমার চেয়েও উন্নত মিশন ও ভিশন নিয়ে কেহ যেন এসে বলতে পারে, জনাব বাবু এবার তুমি থামো, আমার লড়াই করার পালা। কিন্তু বড় বড় নাম ও পদবী নিয়ে যারা এই শহরে নোংরা রাজনীতি করে আসছে তাঁরা নগরীর মানুষগুলোর জন্য নাগরিক অধিকার অতীতে প্রবর্তন করতে পারেন নাই। তাঁরা উন্নয়নের নামে লুটপাট করে বাড়ির নামে দেশ ও বিদেশে প্রাসাদ আর প্রাসাদ বানিয়েছে, পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছেন ঠিকাদারী। আর কেহ বানিয়েছেন এই শহরকে সন্ত্রাস ও মাদকের নগরী।

সিটি কর্পোরেশনকে দুর্নীতিমুক্ত করতে হবে। রাজনৈতিক অপশক্তি মোকাবেলায় আমাদেরকে ঘরে ও বাইরে সজাগ থাকতে হবে। জয় বাংলা নাগরিক কমিটির শেকড় শক্তি হল, বাংলার মাটি , বাংলা ভাষা, বাংলার সংস্কৃতি , মুক্তিযুদ্ধের চেতনা , বঙ্গবন্ধু , স্বাধীন বাংলাদেশ ও জাতীয় স্লোগান ‘জয় বাংলা’। সার্বজনীন অনুপ্রেরণায় রয়েছে, শেখ হাসিনার নেতৃত্ব ও পঞ্চাশ বছরের বাংলাদেশের স্ব স্ব পেশায় থাকা সৎ মানুষগুলো। কাজেই আমাদেরকে থামানো যাবে না। প্রিয় শহরের প্রিয় মানুষগুলোর জন্য সেরা সব চিন্তা করেই আমরা মাঠে নেমেছি।

জয় বাংলা নাগরিক কমিটির পক্ষ থেকে গণসংযোগে থাকা নেতৃবৃন্দ বলেন, আসন্ন নাসিক নির্বাচনে যাকে আমারা মনোনয়ন দিয়েছি, “তাঁর প্রতি বিশ্বাস ও আস্থা রয়েছে। তিনি কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য নন। তবে মনে প্রাণে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর সমর্থক।” তিনি ইতোমধ্যে বলেছেন, “আওয়ামী লীগের মত দল করবার জন্য কামরুল ইসলাম বাবু যোগ্যতা অর্জন করতে পেরেছে কিনা ! তবে দল যদি চায়, যেকোন সময়ে তা হতে পারে। প্রিয় দল না চাইলে আমিও বলবো না, আমাকে দলের সদস্য কর। তবে নাসিক নির্বাচনের ট্রেন ধরব।আমি অবশ্যই আমার প্রিয় দলের সমর্থন প্রত্যাশাও করি। আমার যোগ্যতা দিয়েই হয়তো ভবিষ্যতে দলের সাংগঠনিক দায়িত্বও একদিন পেয়ে যাব। তবে ঠিক এই মুহূর্তে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের চারটি নীতিকে ধারণ করে বলতে চাই, জয় বাংলা ! “

1