হেরেও ফাইনালে সাকিবের সেন্ট্রাল জোন

1

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর ডটকমঃ  ইন্ডিপেন্ডেন্স কাপের ফাইনালে খেলা নিশ্চিত করেছে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন ও বিসিবি সাউথ জোন। তবে তার আগে লীগ পর্বে শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল। সেখানে অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে ছাড়া হারের মুখ দেখে সেন্ট্রাল জোন। সিলেটে তাদের ২২১ রানের লক্ষ্য ৫ উইকেট হাতে রেখে জয় তুলে নিয়েছে বিসিবি সাউথ জোন। দুই দলই সর্বোচ্চ ৪ পয়েন্ট নিয়ে নিশ্চিত করে ফাইনাল। বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগের (বিসিএল) চারদিনের ফরম্যাটেও ফাইনাল মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল। টানা দুই ম্যাচ জিতে আগেই ফাইনালে এক পা দিয়ে রেখেছিল ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন। ফলে শেষ ম্যাচে বিসিবি সাউথ জোনের বিপক্ষে হেরেও ক্ষতি হয়নি।
অন্যদিকে টানা দুই ম্যাচ হারার পর অবশেষে জয়ের মুখ দেখেছে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন। বিসিবি নর্থ জোনের হয়ে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অলরাউন্ড নৈপুণ্য ম্লান হয়েছে ইসলামী ব্যাংক ইস্ট জোন অধিনায়ক ইমরুল কায়েসের ব্যাটিং। এই ম্যাচে রান পেয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবালও। তবে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের দল আগেই ফাইনালের লড়াই থেকে ছিটকে পড়েছে।
সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন ৮ উইকেট হারিয়ে ২২০ রান করে। শেষদিকে আবু হায়দার রনির ব্যাটে ঝড় না তুললে এই রানও হতো না মোসাদ্দেক হোসেনের দলের। ২৭ বলে সর্বোচ্চ ৫৪ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন রনি। লক্ষ্য তাড়ায় নেমে তৌহিদ হৃদয়ের অপরাজিত ৬৫ রানে ৫ উইকেটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বিসিবি সাউথ জোন। দুই ওপেনার পিনাক ঘোষ ও এনামুল হক বিজয়ের ব্যাটে দারুণ শুরু করে বিসিবি সাউথ জোন। ২৪ রান করা বিজয়কে ফেরান মোসাদ্দেক হোসেন। তাতে ভাঙে ৬০ রানের উদ্বোধনী জুটি। নতুন ব্যাটার মাইশুকুর রহমান ৭ রানে ফেরেন দ্রুত। তবে ফিফটি তুলে নেন আরেক ওপেনার পিনাক ঘোষ। অবশ্য ইনিংস লম্বা করতে পারেননি, আউট হন ৭৯ বলে ৫৪ রান করে। তবে তৌহিদ হৃদয় ও জাকির হাসানের ৮০ রানের জুটিতেই সহজ জয় পায় বিসিবি সাউথ জোন। ৪৯ বলে ৪ চারে ৪০ রান আসে জাকিরের ব্যাটে। তবে তৌহিদ হৃদয় দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন। ৭৮ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে ৬৫ রানে ছিলেন অপরাজিত। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে নাহিদুল ইসলাম খেলেন ২২ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের হয়ে সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নেন হাসান মুরাদ।

1