“ক্লুলেস সোহেল হত্যা” ঘটনার রহস্য উন্মোচন এবং হত্যাকান্ডে জড়িত মূল দুই আসামী গ্রেফতার

0

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকমঃ  র‌্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধের উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতার, অপরাধ দমন ও আইন শৃঙ্খলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন চা ল্যকর এবং আলোচিত অপরাধের অপরাধীদের গ্রেফতারে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। নিবিড় গোয়েন্দা নজরদারী ও পরিকল্পিত আভিযানিক কার্যক্রমের ধারাবাহিকতায় অপরাধী গ্রেফতার এবং আইনের আওতায় এনে র‌্যাব ইতিমধ্যেই জনগণের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে।

 গত ২৮/১২/২০২২ তারিখে আনুমানিক বেলা ০২.৪০ ঘটিকায় নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন পূর্বাচল ০৭ নং সেক্টর, রোড নং-২১৯, প্লট নং-০৪ এর সামনে ড্রেনের মধ্যে সোহেল (৩৫) নামক এক ব্যক্তির অর্ধগলিত লাশ পাওয়া যায়। উক্ত লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত শেষে ময়না তদন্ত করা হয় এবং সিআইডি এর সহায়তায় ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে লাশের পরিচয় সনাক্ত করা হয়। পরবর্তীতে লাশের আতœীয়-স্বজনকে খবর দিলে তারা সোহেল (৩৫) নামক ব্যক্তির লাশ বলে সনাক্ত করে। এই ঘটনায় ভিকটিমের বড় ভাই বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন যার মামলা নং-৫৭/৮১৯ তারিখ ২৯/১২/২০২২, ধারা- ৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড ১৮৬০। উল্লেখ্য যে ভিকটিম গত ২২/১২/২০২২ তারিখ আনুমানিক ১৫৩০ ঘটিকা হতে নিখোজ হয় এবং ২৮/১২/২০২২ তারিখ তার লাশ পাওয়া যায়। ধারণা করা হয় গত ২২/১২/২০২২ তারিখ রাতে হত্যাকারীরা ভিকটিমের ঘাড়ে, থুতনীতে জখম সহ বাম হাতের কব্জি ও ডান হাতের তিনটি আঙ্গুল কেটে ফেলে এবং চোখ উঠিয়ে ফেলে এই নৃশংস হত্যাকান্ড সংঘটিত করে। উক্ত ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং গণমাধ্যমে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। এই নৃশংস হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত আসামীদের সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-১১ এর সদর কোম্পানীর একটি চৌকস গোয়েন্দা দল ছায়াতদন্ত শুরু করে।

 এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৫/০১/২০২৩ তারিখ দুপুর আনুমানিক ১৩০০ ঘটিকায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানাধীন তারাবো বিশ^রোড এলাকা থেকে হত্যাকান্ডে জড়িত মূল আসামী ১। মোঃ আল আমিন (৩০), পিতা- মোঃ মফিজ মিয়া, সাং-লক্ষীপুর, থানা-কালকিনি, জেলা-মাদারীপুরকে গ্রেফতার করা হয় এবং তারই স্বীকারোক্তি মতে অদ্য ১৬/০১/২০২৩ তারিখ রাত আনুমানিক ০১০০ ঘটিকায় গাজীপুরের শ্রীপুর থানাধীন মাওনা এলাকা হতে হত্যাকান্ডে জড়িত অন্য আসামী ২। মোঃ আলমগীর (২৫), পিতা-মৃত আব্দুল মালেক, সাং-উত্তর গোবিন্দপুর, থানা-হোসেনপুর, জেলা-কিশোরগঞ্জ; এ/পি সাং-নোয়াপাড়া, থানা-রূপগঞ্জ, জেলা-নারায়ণগঞ্জকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামীরা হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়ের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

0